মালিকের কাছ থেকে গাড়ি ভাড়া নিয়ে তা চুরি করার অভিযোগ উঠেছিল এক অ্যাপ-ক্যাব চালকের বিরুদ্ধে। সেই চালককে গ্রেফতার করে গাড়িটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, কাশীপুর রোডের বাসিন্দা সৌমী সেনগুপ্ত গত ২০ মার্চ কাশীপুর থানায় গিয়ে জানান যে, যশোর রোডের বাসিন্দা প্রমোদকুমার ঝা-কে তিনি তাঁর গাড়ি চালাতে দিয়েছিলেন। ওই চালক একটি অ্যাপ ক্যাব সংস্থায় গাড়িটি চালাত। প্রমোদের সঙ্গে ওই মহিলার চুক্তি ছিল, প্রতি রাতে তাঁর বাড়িতে গাড়ি ফেরত দিয়ে আসতে হবে।

ওই মহিলা থানায় অভিযোগে জানান, গত ১৯ মার্চ রাত সাড়ে ১০টাতেও বাড়িতে গাড়ি ফেরত না আসায় চালকের সঙ্গে তিনি যোগাযোগ করেন। ওই চালক সেই সময় জিপিএস বন্ধ করে রেখেছিলেন। তবে ফোনে ওই চালক সৌমীদেবীকে জানান, কিছুক্ষণের মধ্যেই গাড়িটি বাড়িতে রেখে আসতে যাচ্ছেন। কিন্তু সারা রাত অপেক্ষার পরেও গাড়ি না ফিরলে পরের দিন সকালে চালকের বিরুদ্ধে পুলিশে চুরির অভিযোগ দায়ের করেন সৌমীদেবী।

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

পুলিশ জানায়, অভিযোগ পেয়ে প্রমোদের যশোর রোডের বাড়িতে হানা দিয়ে তাঁকে গ্রেফতার করেন লালবাজারের মোটরগাড়ি চুরি দমন শাখার অফিসারেরা। গত বৃহস্পতিবার শিয়ালদহ আদালতে প্রমোদকে হাজির করানো হলে বিচারক তাঁর চার দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন বলে জানিয়েছেন ওই আদালতের সরকারি কৌঁসুলি অরূপ চক্রবর্তী।

এর পরে ধৃত প্রমোদকে নিয়ে শহরের বিভিন্ন জায়গায় গাড়ির খোঁজে তল্লাশি চালায় পুলিশ। কিন্তু গাড়ির খোঁজ মিলছিল না। অবশেষে শনিবার জেরায় ধৃত স্বীকার করে যে, দমদম থানা এলাকায় ১ নম্বর রেল গেটের কাছে পরিত্যক্ত একটি জায়গায় গাড়িটি রেখে দিয়েছেন তিনি। এর পরেই সেখানে তল্লাশি চালিয়ে গাড়িটি উদ্ধার করা হয়।

কৌঁসুলি অরূপবাবু জানান, পুলিশি হেফাজতের মেয়াদ শেষ হওয়ায় সোমবার অভিযুক্তকে আদালতে হাজির করানো হয়। এ দিন বিচারক ধৃতকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন।