পুলিশ ও পুরসভার দল আগেই জানতে পেরেছিল, বেআইনি ভাবে বিক্রি হচ্ছে বোতলবন্দি জল। তবে সেই জলের মান কেমন, তা তখন জানা যায়নি। বুধবার ওই সব বোতলবন্দি জলের পরীক্ষার রিপোর্ট পেয়ে হতবাক পুর প্রশাসন। জানা গেল, বিভিন্ন নামের মোট ৫৫ বোতল জলের নমুনার মধ্যে ৪০টিতেই রয়েছে অসংখ্য কলিফর্ম ব্যাক্টিরিয়া!

এ দিন ওই খবর জানিয়ে মেয়র পারিষদ (স্বাস্থ্য) অতীন ঘোষ বলেন, ‘‘যে সব সংস্থার বোতলের জলে কলিফর্ম মিলেছে, সেগুলির তালিকা এনফোর্সমেন্ট শাখায় পাঠানো হচ্ছে। ভেজাল জল তৈরির অভিযোগে ওই সব সংস্থার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তাব পাঠাচ্ছে পুর প্রশাসন।’’

সম্প্রতি দক্ষিণ কলকাতার কয়েকটি ওয়ার্ডে আন্ত্রিকের প্রকোপ বাড়ায় পুরসভার জলের পাশাপাশি শহরে বিক্রি হওয়া বোতলবন্দি জলের বিরুদ্ধেও যৌথ অভিযান চালায় পুরসভা ও পুলিশ। দিন কয়েক আগে পুর ভবনে এক বৈঠকে ঠিক হয়, রাজ্য ও কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট শাখা পুরসভার থেকে তালিকা পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হবে। এনফোর্সমেন্ট শাখা সূত্রে খবর, এক দিকে বিনা লাইসেন্সে বেআইনি ভাবে জল বিক্রি, সঙ্গে দূষিত জল বিক্রির দায়ে তালিকাভুক্ত সংস্থার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা শীঘ্রই নেওয়া হবে।