সল্টলেকের সেক্টর ফাইভ এলাকায় হকার উচ্ছেদ করা যেতে পারে। কিন্তু তা করতে হবে রাজ্যের হকার বিধি মেনে। সেক্টর ফাইভ এলাকায় হকার উচ্ছেদ সংক্রান্ত মামলায় বুধবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাক এই নির্দেশ দিয়েছেন। ওই এলাকায় হকারদের উচ্ছেদ করা নিয়ে ‘নবদিগন্ত ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট অথরিটি’ এত দিন যত পদক্ষেপ করেছে, এ দিন তা-ও খারিজ করে দিয়েছেন বিচারপতি।

গত জুলাইয়ে নবদিগন্ত কর্তৃপক্ষ এবং পুলিশ যৌথ ভাবে মাইকে ঘোষণা করেছিল যে, সেক্টর ফাইভের বিভিন্ন রাস্তায় যে সব হকার রয়েছেন তাঁদের মালপত্র সরিয়ে নিয়ে যেতে হবে। এর প্রতিবাদ জানিয়ে হকারেরা এক দিন দোকানপাট বন্ধ রাখেন। সেক্টর ফাইভ এলাকার সৌন্দর্যায়নের জন্য ওই হকারদের উচ্ছেদ করা প্রয়োজন বলে 

বিধাননগর পুরসভা সে সময় জানিয়েছিল। নবদিগন্ত কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি জানিয়ে এর পরেই হাইকোর্টে মামলা করে সেক্টর ফাইভ এলাকার হকার সংগঠন। ওই সংগঠনের সদস্য সংখ্যা ৭৩০ জন। মামলার আবেদনে তাঁরা অভিযোগ করেন, বেআইনি ভাবে উচ্ছেদের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। তাই ওই বিজ্ঞপ্তি খারিজ করা হোক।

হকার সংগঠনের পক্ষে আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য ও দেবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায় গত ৩০ জুলাই শুনানিতে সওয়াল করেন যে, রাজ্য সরকার এখনও পর্যন্ত হকার বিধি তৈরি করে উঠতে পারেনি। কোথায় হকারেরা বসবেন, তাঁদের পুনর্বাসনেরই কি বন্দোবস্ত হবে, সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ‘টাউন ভেন্ডিং কমিটি’র। কিন্তু হকার বিধি তৈরি না হওয়ায় এখনও পর্যন্ত ওই কমিটি গড়া যায়নি। ওই দিন মামলার শুনানি সময়ে রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল (এজি) 

কিশোর দত্ত আদালতে জানান, রাজ্য সরকার খুব শীঘ্রই হকার বিধি তৈরি করবে। একই সঙ্গে এজি আদালতে আশ্বাস দিয়েছিলেন, বিধি তৈরি না হওয়া পর্যন্ত হকার উচ্ছেদ বন্ধ রাখা হবে।

এ দিন মামলার পরবর্তী শুনানি ছিল। এজি হাইকোর্টে জানান, রাজ্য সরকার হকার বিধি তৈরি করেছে। তা শোনার পরেই বিচারপতি বসাক ওই নির্দেশ দেন।