• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ফের বন্ধ হচ্ছে বেলুড় মঠ

Belur Math
সতর্কতা: ভক্ত ও দর্শনার্থীদের জন্য আবার বন্ধ হল বেলুড় মঠ। শনিবার এ নিয়ে জারি হয়েছে বিজ্ঞপ্তি (ইনসেটে)। নিজস্ব চিত্র

৪৮ দিন খোলা থাকার পরে ফের বন্ধ করে দেওয়া হল বেলুড় মঠ। আজ, রবিবার থেকে আপাতত অনির্দিষ্টকালের জন্য মঠে ভক্ত ও দর্শনার্থীদের প্রবেশ স্থগিত রাখা হচ্ছে। লকডাউনের সময়ের মতো এ বারও মঠের মূল গেট বন্ধ থাকবে।

সূত্রের খবর, করোনা সংক্রমণের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে ভক্ত, দর্শনার্থী-সহ প্রবীণ সন্ন্যাসী, মঠের কর্মী— সকলের কথা চিন্তা করেই ফের মঠ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন কর্তৃপক্ষ। শনিবার এ নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের সাধারণ সম্পাদক স্বামী সুবীরানন্দ বলেন, ‘‘একাধিক কারণে ২ অগস্ট থেকে শুরু করে পুনরায় না জানানো পর্যন্ত মঠ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আশা করি আমাদের অসুবিধার কথা বুঝে ভক্ত ও দর্শনার্থীরা সহযোগিতা করবেন।’’

লকডাউনের জেরে গত ২৫ মার্চ থেকে বন্ধ ছিল মঠ। ৮২ দিন পরে, ১৫ জুন থেকে ফের ভক্ত ও দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হয় মঠের দরজা। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বেলা ১১টা এবং বিকেল ৪টে থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত মঠ খোলা থাকছিল। তবে সংক্রমণ রুখতে বিভিন্ন সুরক্ষা-বিধি মানলে তবেই মিলছিল ভিতরে ঢোকার ছাড়পত্র। মূল গেটে প্রবেশের আগেই অস্থায়ী মণ্ডপে কিছু ক্ষণ অপেক্ষা করে তার পরে থার্মাল স্ক্রিনিং ও স্যানিটাইজ় করে মঠ চত্বরে ঢুকছিলেন দর্শনার্থীরা। দূরত্ব-বিধি মেনে শুধু মাত্র মূল মন্দির, স্বামী ব্রহ্মানন্দ মন্দির, মা সারদা মন্দির ও স্বামী বিবেকানন্দের সমাধি মন্দির দর্শন করা যাচ্ছিল। দিনে দু’বার জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছিল গোটা মঠ চত্বর।

সূত্রের খবর, দেশ ও রাজ্য, এমনকি হাওড়াতেও জুলাই মাসে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। জুলাইয়ে হাওড়ায় মৃত্যুর হারও প্রায় ২.৩ শতাংশ। এই সমস্ত কিছু পর্যালোচনা করে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ফের মঠ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অন্য দিকে, বাগবাজারের মায়ের বাড়িতেও অনির্দিষ্টকালের জন্য ভক্ত ও দর্শনার্থীদের প্রবেশ বন্ধ রয়েছে।

 

(জরুরি ঘোষণা: কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের জন্য কয়েকটি বিশেষ হেল্পলাইন চালু করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। এই হেল্পলাইন নম্বরগুলিতে ফোন করলে অ্যাম্বুল্যান্স বা টেলিমেডিসিন সংক্রান্ত পরিষেবা নিয়ে সহায়তা মিলবে। পাশাপাশি থাকছে একটি সার্বিক হেল্পলাইন নম্বরও।

• সার্বিক হেল্পলাইন নম্বর: ১৮০০ ৩১৩ ৪৪৪ ২২২
• টেলিমেডিসিন সংক্রান্ত হেল্পলাইন নম্বর: ০৩৩-২৩৫৭৬০০১
• কোভিড-১৯ আক্রান্তদের অ্যাম্বুল্যান্স পরিষেবা সংক্রান্ত হেল্পলাইন নম্বর: ০৩৩-৪০৯০২৯২৯)

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন