শব্দবাজি নিয়ে উচ্ছৃঙ্খলতা যে কতটা মারাত্মক হতে পারে, তার একটা উদাহরণের সাক্ষী রইলেন কিছু বাসযাত্রী এবং পথচলতি মানুষ। রাস্তায় চলন্ত যাত্রিবোঝাই বাসের মধ্যে বাইক থেকে চকলেট বোমা ছুড়ে পালাল কিছু যুবক!ঘটনায় কমবেশি আহত হয়েছেন কয়েক জন। বৃহস্পতিবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে বিধাননগর সিটি পুলিশের বাগুইআটি থানা এলাকায়।

ওই রাতে জোড়ামন্দির থেকে চিনার পার্কের দিকে যাচ্ছিল একটি বেসরকারি বাস। সেই বাসের সমান্তরালে যাওয়া একটি বাইক থেকে ওই চকলেট বোমা ছোড়া হয় বলে অভিযোগ।কন্ডাকটর কিছু বোঝার আগেই বিকট আওয়াজ করে সেই বোমা ফাটে বাসের মধ্যে। কোনও যাত্রীই প্রথমে কিছু বুঝতে পারেননি। আচমকা বিকট আওয়াজে সবাই চমকে ওঠেন। আতঙ্কে হুড়োহুড়ি শুরু হয়ে যায় বাসের মধ্যে। বোমার টুকরো ছিটকে ছোটখাটো আঘাত পান কয়েকজন। চলন্ত বাসে এ ভাবে বাজি জ্বালিয়ে ছুড়ে দেওয়ার ঘটনায় সবাই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।

ওই বাসটির কিছুটা পিছনেই নিজের গাড়িতে বাড়ি ফিরছিলেন নিউটাউনের বাসিন্দা সাত্যকি হালদার। তিনি বলেন, ‘‘তখন রাত ১০টা ৪০ বাজে। রাজারহাট রোড ধরে চিনারপার্কের দিকে যাচ্ছিলাম। সামনে কিছুটা দূরেই একটি বাইক ছিল। হঠাৎ চোখের নিমেষে সেই বাইকটি ইউ টার্ন নিয়ে প্রবল গতিতে লেন ভেঙে এগিয়ে আসে। আমার গাড়ির গতি কম ছিল। তাই কোনওক্রমে ব্রেক কষে আমি ওই বাইকের সঙ্গে সংঘর্ষ এড়াই। বাইকে তিনজন অল্পবয়সী ছেলে ছিল। ওরাও আমার গাড়ির সামনে এসে টাল সামলে পড়িমড়ি করে পালায়।’’

আরও পড়ুন: তিন বছরের শিশুর মুখে চকলেট বোমা ঢুকিয়ে আগুন! ছিন্নভিন্ন শরীরে ৫০ সেলাই

তাঁর দাবি, তিনি ধাতস্থ হওয়ার আগেই সামনে দেখেন বাসটি দাঁড়িয়ে গিয়েছে। চেঁচামেচি করতে করতে বাস থেকে সবাই নেমেও এসেছেন। সাত্যকিবাবুর কথায়, ‘‘গাড়ি থামিয়ে তাঁদের কাছে গিয়ে জানতে পারি, ওই বাইকে থাকা যুবকরা বাসটির সমান্তরালে বাঁদিক দিয়ে যাচ্ছিল। চলন্ত বাইক থেকেই আরোহীদের দু’জন চকলেট বোমা জ্বালিয়ে বাসের খোলা দরজা দিয়ে ভেতরে ছুড়ে দেয়।”

আরও পড়ুন: শব্দবাজি থামাতে গিয়ে প্রহৃত পুলিশ

সাত্যকিবাবুর দাবি,তিনি প্রথমে বিধানগর পুলিশের কন্ট্রোলরুমে ঘটনাটি জানান। তাঁর কথায়, “কিছুক্ষণ পর রাত সওয়া ১১টা নাগাদ বিধাননগর পুলিশের কন্ট্রোলরুম থেকে ফোন আসে। আরও বিশদে আমার কাছে গোটা ঘটনাটা জানতে চাওয়া হয়।” তিনি পুলিশকে বাইকের বর্ণনা দেন। কালো রঙের বাইকটিতে চালক বা আরোহীর কারও হেলমেট ছিল না।

আরও পড়ুন: দূষণ-দৌড়ে প্রথম এ বারের দীপাবলি

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, তারা গোটা রাস্তার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ খুঁটিয়ে দেখছে। বিধাননগর পুলিশের এক আধিকারিক বলেন,“দ্রুত ওই দুর্বৃত্তদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার করা হবে। আমরা ফুটেজের পাশাপাশি স্থানীয়দের সাহায্য নিয়ে অভিযুক্তদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করছি।”

(কলকাতার ঘটনা এবং দুর্ঘটনা, কলকাতার ক্রাইম, কলকাতার প্রেম - শহরের সব ধরনের সেরা খবর পেতে চোখ রাখুন আমাদের কলকাতা বিভাগে।)