ফণীর আতঙ্কের মধ্যেই শুক্রবার রাত থেকে শনিবার সকালের মধ্যে ঝোড়ো হাওয়ার দাপটে ঘটে গেল কয়েকটি দুর্ঘটনা। 

পুলিশ সূত্রের খবর, শুক্রবার গভীর রাতে হাওয়ার দাপটে টালি ভেঙে জখম হয়েছিলেন পাঁচ রিকশাচালক। ঘটনাটি ঘটে বেনিয়াটোলা স্ট্রিটে। পুলিশ জানায়, রিকশাচালকদের রাতেই আর জি কর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসার পরে ছেড়ে দেওয়া হয়। আহতেরা ভোলা যাদব, মহেশ যাদব, সূর্য যাদব, বসন্ত যাদব ও চন্দ্র যাদব। শনিবার সকালে বিডন স্ট্রিটের অন্য ঘটনায় তিনতলা বাড়ির কার্নিস ভেঙে পড়ে। ওই ঘটনায় তিনটি ভাড়া বাড়ির অ্যাসবেস্টসের চাল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, ১৭ বেনিয়াটোলা স্ট্রিটে একতলায় ঘর ভাড়া নিয়ে থাকতেন পাঁচ রিকশাচালক। শুক্রবার গভীর রাতে যখন তাঁরা ঘুমোচ্ছিলেন ঘরের চাল থেকে টালি হুড়মুড়িয়ে পড়ে যায় তাঁদের উপরে। স্থানীয় একটি ক্লাবের সদস্যরা সঙ্গে সঙ্গে জোড়াবাগান থানায় খবর দেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যায়। স্থানীয় রিকশাচালকেরা জানান, প্রাথমিক চিকিৎসার পরে আহতদের ছেড়ে দিলে তাঁদের নাথেরবাগান এলাকায় এক আত্মীয়ের বাড়িতে রেখে আসা হয়। স্থানীয় মিষ্টির দোকানের কর্মীরা জানান, ভাঙা টালির ঘরে তালা লাগিয়ে দিয়েছে পুলিশ।পুলিশ জানিয়েছে, শনিবার সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ ৪৫/১/সি বিডন স্ট্রিটে তিনতলা বাড়ির ছাদের কার্নিস ভেঙে পড়ে ২০/১ গোয়াবাগান স্ট্রিটের তিনটি ভাড়ার ঘরে। তার ফলে গোয়াবাগান স্ট্রিটের পাশাপাশি তিনটি ভাড়ার ঘরের অ্যাসবেস্টসের চাল ধসে যায়। ঘটনাচক্রে কার্নিস ভেঙে পড়ার সময় কোনও ঘরেই কোনও ভাড়াটে ছিলেন না। বিমল রায় নামে এক ভাড়াটে জানান, তিনি ওই সময়ে স্নান করতে গিয়েছিলেন। জোরালো শব্দ শুনে বেরিয়ে এসে দেখেন, তাঁর ঘরের অ্যাসবেস্টসের চাল পুরোটাই ভেঙে গিয়েছে। অন্য দুই ভাড়াটে দীনবন্ধু চক্রবর্তী ও পরমেশ্বর চক্রবর্তী জানান, খবর পেয়ে কলকাতা পুরসভার বিপর্যয় মোকাবিলা দলের কর্মীরা দ্রুত হাজির হন এবং কার্নিসের চাঙড় সরিয়ে দেন। পুরসভার বিল্ডিং বিভাগের অফিসারেরাও তাঁদের ভাঙা চালের ঘর দেখে গিয়েছেন বলে ভাড়াটেরা জানান।

পুলিশ সূত্রের খবর, এ দিন সকালেই বৌবাজার থানা এলাকায় ২২, রবীন্দ্র সরণিতে একটি তিনতলা বাড়ির ছাদের কার্নিস ভেঙে রাস্তায় পড়ে। পুলিশ সূত্রের খবর, কার্নিসের ভগ্নস্তূপ পরে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেন পুরসভার কর্মীরা। মনোহর পুকুর রোডে একটি বাড়ির পাঁচিলের একাংশ এ দিন সকালের বৃষ্টিতে ধসে পড়ে। কোনও ঘটনায় অবশ্য কেউ হতাহত হননি বলে খবর। 

ঝোড়ো হাওয়ার দাপটে বেলেঘাটার কাদাপাড়া এলাকায় এ দিন বাতিস্তম্ভ থেকে বিদ্যুতের তার ঝুলে রাস্তায় পড়ে। খবর পেয়ে সিইএসসি কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিদ্যুতের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।