রামরিক হাসপাতালে এক চিকিৎসকের অস্বাভাবিক মৃত্যু হল। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতের নাম শাশ্বত হীরা (৩৪)। তাঁর বাড়ি উত্তর চব্বিশ পরগনার বারাসতে।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রের খবর, শনিবার রাত আটটা থেকে রবিবার সকাল আটটা পর্যন্ত ডিউটি ছিল অ্যানাস্থেটিস্ট শাশ্বতবাবুর। শনিবার সন্ধ্যায় তিনি হাসপাতালে কাজে যোগ দেন। রবিবার সকালে শৌচাগারে যাওয়ার পরে তাঁর আর সাড়াশব্দ পাওয়া যায়নি। অনেক ডেকেও সাড়া না পাওয়ায় সকাল সাড়ে সাতটা নাগাদ খবর দেওয়া হয় পুলিশকে। পুলিশ এসে দরজা ভেঙে দেখে, শাশ্বতবাবু মেঝেয় পড়ে রয়েছেন। হাসপাতালের চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ জানিয়েছে, পারিবারিক অশান্তির কারণে অবসাদে ভুগছিলেন শাশ্বতবাবু। মাসখানেক আগে তাঁর বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। পুলিশের এক কর্তা বলেন, ‘‘মৃতের পরিবারের তরফে রবিবার রাত পর্যন্ত কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি। একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। ময়না-তদন্তের রিপোর্টে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।’’ তবে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, শরীরে বিষাক্ত ইঞ্জেকশন দিয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন শাশ্বতবাবু। কোনও সুইসাইড নোট অবশ্য মেলেনি।

হাসপাতালের এক চিকিৎসকের বলেন, ‘‘শাশ্বত খুব ভালো চিকিৎসক ছিলেন। মানসিক ভাবে অস্থির থাকলেও পারিবারিক সমস্যা নিয়ে কাউকে কিছু বলতেন না।’’