অষ্টমীর দুপুরে কয়েক মিনিটের দমকা হাওয়ায় ভেঙে পড়ল আলোকসজ্জার তোরণ। তার জেরে বাধা পেল দক্ষিণ শহরতলির একাংশের যানবাহনের গতি। ফলে রবিবার দুপুর থেকেই ভোগান্তিতে পড়েন ওই এলাকার লোকজন। ঘটনায় একটি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হলেও কেউ হতাহত হননি। তোরণটি সরানোর জন্য নিয়ে যাওয়া হয় দমকলের মই লাগানো গাড়ি। যায় কলকাতা পুলিশের বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীও।

পুলিশ জানায়, এ দিন দুপুর তিনটের পরে দক্ষিণ কলকাতা ও দক্ষিণ শহরতলির বিভিন্ন অংশে শুরু হয় বৃষ্টি। সঙ্গে বইতে থাকে ঝোড়ো হাওয়া। তাতেই যাদবপুর সুলেখা মোড়ের কাছে ভেঙে পড়ে স্থানীয় যাদবপুর অ্যাথলেটিক ক্লাবের আলোকসজ্জার ওই তোরণ। থমকে যায় রাজা সুবোধ মল্লিক রোডের ওই অংশ।

গত কয়েক বছর ধরেই যে কোনও রাস্তার উপরে তোরণ তৈরি নিষিদ্ধ করেছে প্রশাসন। তার পরেও কী করে ওই ক্লাবটি তোরণ তৈরির অনুমতি পেল, তা নিয়ে ক্লাবের তরফে কিংবা প্রশাসনের তরফে কিছু জানানো হয়নি। পুলিশের একটি অংশের দাবি, তোরণটি মূল রাস্তার ধারে বানানো হয়েছিল। 

ট্র্যাফিক পুলিশ জানিয়েছে, সন্ধ্যা পর্যন্ত সুলেখা মোড় থেকে বাঘা যতীন মোড় অবধি গাড়ি চলাচল বন্ধ ছিল। অটো ছাড়া কোনও গাড়িকেই যাতায়াত করতে দেওয়া হয়নি নিরাপত্তার স্বার্থে। বাঘা যতীনের দিকে যাওয়ার গাড়িগুলি যাদবপুর থানার সামনে থেকে প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড এবং জীবনানন্দ সেতুর দিকে ঘুরিয়ে দেওয়া হয়। কিছু গাড়িকে সুকান্ত সেতু দিয়ে সন্তোষপুর হয়ে ই এম বাইপাসে পাঠানো হয়েছে। গড়িয়া থেকে যাদবপুরের দিকে যাওয়া গাড়িকে পদ্মশ্রী মোড় থেকে বৈষ্ণবঘাটা পাটুলি দিয়ে ই এম বাইপাসে পাঠানো হয়েছে। বাঘা যতীন মোড় থেকেও ঘোরানো হয়েছে অনেক গাড়ি। লালবাজারের একাংশের দাবি, এর জেরেই প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড, গড়িয়াহাট রোড (দক্ষিণ)-সহ বিভিন্ন রাস্তায় গাড়ির গতি বাধা পেয়েছে।