জালিয়াতদের ধরা যাঁদের কাজ, এ বার সেই গোয়েন্দাদের নাম ভাঁড়িয়ে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। তপসিয়া থানার পুলিশ সোমবার গ্রেফতার করেছে সেই ভুয়ো ‘গোয়েন্দা’কে। ধৃতের নাম জয়দেব চন্দ্র। মঙ্গলবার শিয়ালদহ আদালতে হাজির করানো হলে বিচারক ধৃতকে ১১ দিনের পুলিশি হেফাজত দেন।

পুলিশ সূত্রের খবর, তপসিয়ার ডক্টর নুর উল্লা লেনের বাসিন্দা পেশায় প্রোমোটার শেখ কামিলের সঙ্গে গত মার্চে আলাপ হয় জয়দেবের। সে কলকাতা পুলিশের ইনভেস্টিগেশন ব্যুরোর স্পেশাল ব্রাঞ্চের কর্মী বলে পরিচয় দেয়। জানায়, পুলিশের বড়কর্তাদের সঙ্গে তার ওঠাবসা রয়েছে। কামিলকে কলকাতা পুলিশের লোগো লাগানো পরিচয়পত্রও দেখায়।

দিন কয়েক পরে কামিলকে অভিযুক্ত জানায়, সে রামমোহন বেরা লেনে তাদের পৈতৃক বাড়িটি ভেঙে বহুতল করতে চায়। ওই রাস্তার ধারে একটি বাড়িতে কামিলকে নিয়ে যায় জয়দেব। এর পরে মার্চ মাসের শেষে ওই বাড়ি প্রোমোটিংয়ের জন্য তাঁর সঙ্গে সে প্রাথমিক ভাবে পাঁচ লক্ষ টাকার চুক্তি করে। চুক্তির শর্ত অনুযায়ী আগাম নেয় আড়াই লক্ষ টাকা। কিন্তু বাড়ির দলিল বা পুরসভার কর জমা দেওয়ার নথি, কোনওটিই জয়দেব তাঁকে দেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন কামিল। তিনি খোঁজ নিয়ে এ-ও জানতে পারেন, রামমোহন বেরা লেনের ওই বাড়িটি ‘ঠিকা টেন্যান্সি’-র জমিতে তৈরি হয়েছে।

এর পরেই সোমবার রাতে রামমোহন বেরা লেনে জয়দেবের সঙ্গে দেখা করেন কামিল। আগাম দেওয়া আড়াই লক্ষ টাকা ফেরত চান। জয়দেব টাকা দিতে অস্বীকার করায় বচসা বাধে দু’জনের। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে অভিযুক্তকে ধরে। জয়দেবের থেকে কলকাতা পুলিশের জাল পরিচয়পত্র বাজেয়াপ্ত হয়েছে।