কেউ নাকি ‘দুষ্টুমি’ করেই বিদেশি রকস্টারের নামে নামাঙ্কিত করেছিল রাস্তা। আর তাঁকে বিশ্বাস করে গুগল ম্যাপেও ফুটে উঠেছিল রাজারহাট এলাকায় চেস্টার বেনিংটন স্ট্রিটের নাম।

কলকাতায় গুগলের আঞ্চলিক গাইড শৌনক দাস সম্প্রতি এমন তথ্যই জানিয়েছেন। শৌনকের দাবি, তিনিই যোগাযোগ করেন গুগলের সঙ্গে। তার ভিত্তিতেই গত সপ্তাহে চেস্টার বেনিংটন স্ট্রিটের নাম বদলে ক্যানাল ব্যাঙ্ক রোড করা হয়েছে। রাজারহাটের যাত্রাগাছি মোড়
থেকে বাগজোলা খালের পাশ দিয়ে ওই রাস্তা গিয়েছে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে।

গত মাসে যাত্রী নিয়ে ওই এলাকা দিয়ে যাওয়ার সময়ে এক অ্যাপ-ক্যাব চালকের মোবাইলে ফুটে ওঠে চেস্টার বেনিংটন স্ট্রিটের নাম। পরে স্থানীয় মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাঁরা আকাশ থেকে পড়েন। এমন নামের কথা তাঁদের জানা ছিল না। যে এলাকায় বিভিন্ন জায়গার নাম বালিগুড়ি, চকমাচুরিয়া, আকন্দকেশরী, ভোজেরহাট, সেই এলাকায় একটি রাস্তার নাম কী ভাবে দুম করে চেস্টার বেনিংটনের নামে করা হল, তা নিয়ে ধন্দে পড়ে যান স্থানীয় বাসিন্দারাই। অবাক হয়ে গিয়েছিলেন বিধাননগর পুরসভার মেয়র সব্যসাচী দত্ত। হিডকো-র চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন বলেন, ‘‘এটা গুগল ম্যাপে ঠিক করে নেওয়া উচিত। নচেৎ বিভ্রান্তি বাড়বে।’’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চেস্টার আসলে আমেরিকার এক রকস্টার। মাত্র ৪১ বছর বয়সে চলতি বছরের জুলাই মাসে তিনি আত্মহত্যা করেন। তাঁর সঙ্গে কলকাতা, রাজারহাট, পশ্চিমবঙ্গ বা ভারতবর্ষের কোনও ভাবেই কোনও যোগাযোগের প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

এমন এক ব্যক্তির নামে হঠাৎ করে রাজারহাটের রাস্তার নামকরণ কেন হল?

শৌনকবাবুর কথায়, ‘‘এ রাজ্যে অনেকেই গুগলের ম্যাপ মেকার হিসেবে কাজ করেন। তাঁরা কখনও কোনও রাস্তার নাম বদলে দিলে, বা নামকরণ হয়েছে বলে গুগলকে জানালে তা বিবেচনা করে দেখা হয়। যদি দেখা যায়, ওই সংশ্লিষ্ট ম্যাপ মেকারের পরামর্শ এর আগে ৯০ শতাংশের মতো ক্ষেত্রে বিবেচিত হয়েছে, তখন তাঁর নতুন পরামর্শকেও গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয়।’’

গত দু’বছর ধরে সানফ্রান্সিসকোতে গুগলের আঞ্চলিক গাইড সংক্রান্ত বৈঠকে যোগ দেওয়া শৌনকবাবু জানিয়েছেন, রাজারহাটের চেস্টার বেনিংটন স্ট্রিটের ক্ষেত্রেও এমন কোনও স্থানীয় ম্যাপ মেকার ‘দুষ্টুমি’ করে এমন কাজ করেছেন। ‘দুষ্টুমি’— কারণ, চেস্টারের নামে এখানকার রাস্তার নামকরণ করার কোনও যৌক্তিকতা নেই বলেই মনে করেন শৌনকবাবু।

কে সেই দুষ্টু ম্যাপ মেকার?

শৌনকবাবুর কথায়, ‘‘আমি তাঁর নামও জানতে চেয়েছিলাম গুগলের কাছে। কিন্তু সংস্থার নিজস্ব নিয়ম অনুযায়ী, এ ভাবে ম্যাপ মেকারের নাম প্রকাশ করে না তারা। তবে আমার যুক্তি মেনে নিয়েই গুগল যখন রাস্তার নাম বদলে ক্যানাল ব্যাঙ্ক রোড করে দিয়েছে, তখন ওই ম্যাপ মেকারের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আমার ধারণা। তাঁকে ব্লকও করে দেওয়া হতে পারে।’’

 

কলকাতার আরও খবর পড়তে চোখ রাখুন আনন্দবাজারে।