কলকাতা মেট্রোর পরিকাঠামোয় যে গাফিলতি রয়েছে, বৃহস্পতিবারই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছিল রাজ্যের দমকল দফতর। এই অভিযোগ যে অমূলক নয়, ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তা মেনে নিলেন মেট্রো কর্তৃপক্ষ।

গত ২৭ ডিসেম্বর ময়দানে মেট্রোয় অগ্নি-কাণ্ডের ঘটনার পর, যাত্রী নিরাপত্তা এবং পরিকাঠামো নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। দমকল, কলকাতা পুলিশের পাশাপাশি তদন্ত শুরু করেছেন মেট্রো কর্তৃপক্ষও। এই ঘটনার তদন্ত করছেন খোদ কমিশনার অব রেলওয়ে সেফটি (সিআরএস) মহম্মদ লতিফ খান।

ইতিমধ্যেই ময়দান মেট্রোর ঘটনা নিয়ে ইলেকট্রিশিয়ান, চালক থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মীদের বয়ান নেওয়া হয়েছে। তদন্ত করতে গিয়ে ফাঁকফোকরের দিকটিও উঠে এসেছে বলে মেট্রো রেল সূত্রে খবর।

আরও পড়ুন: রাহুলের প্রশ্ন, নির্মলার উত্তর: রাফাল তর্কে উত্তপ্ত বাদানুবাদ লোকসভায়​

আরও পড়ুন: আমেরিকাকে জবাব দিতে এ বার ‘মোয়াব’ বোমা বানাল চিন​

পরিকাঠামোয় জোর দেওয়ার জন্যে সিআরএস যে সব বিষয়ে জোর দিতে বলেছেন, সেগুলি হল—

১) প্রতিটি মেট্রোর কামরায় ভিডিয়ো মনিটরিং ও নজরদারির ব্যবস্থা থাকতে হবে। নজরদারির অডিয়ো-ভিসুয়াল লাইভ সম্প্রচার চালকও যাতে দেখতে পান সেই ব্যবস্থাও করতে হবে। যাতে আপৎকালীন সময়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়।

২) প্রতিটি রেক ও স্টেশনে অগ্নি নির্বাপণ ও স্মোক অ্যালার্ম থাকতে হবে এবং এই ব্যবস্থা ‘সেন্ট্রাল মনিটরিং সিস্টেম’-এর সঙ্গে সংযোগ করতে হবে। যাতে প্রতিটি স্টেশনের কর্মীরা ছাড়াও মেট্রো ভবন থেকেও মেট্রো নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

৩) রেকের মধ্যে বিপদের সময়ে যাত্রীদের সঙ্গে চালকের কথোপকথনের রেকর্ড প্রতিটি ‘রিভিউ’ করতে হবে, সেগুলি রেকর্ডের ব্যবস্থাও রাখতে হবে এবং প্রতিদিনই জেনারেল ম্যানেজারের কাছে মেট্রো চলাচলের রিপোর্ট পেশ করতে হবে।