পোস্তা উড়ালপুল থেকে খোলা হল বিজ্ঞাপন
লোকসভার নির্বাচন বিধি অনুসারে সরকারি ভবন, অফিস বা সেতু থেকে রাজনৈতিক হোর্ডিং সরানোর নির্দেশ দিয়েছিল নিবার্চন কমিশন।
Hoarding

তৎপর: বিজ্ঞাপন খুলছেন পুরসভার কর্মীরা। নিজস্ব চিত্র

সরকারি ভবন, অফিস, সেতুর গায়ে কোনও রাজনৈতিক হোর্ডিং, ব্যানার বা বিজ্ঞাপন থাকলে তা সরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। কিন্তু সেই কাজ পুরোপুরি করা হয়নি, এ কথা জানিয়ে গত সোমবার কলকাতা পুরসভাকে চিঠি পাঠানো হয়েছিল। সেই চিঠি পাওয়ার পরে মঙ্গলবার রাতে পোস্তা উড়ালপুলের দেওয়ালে এবং স্তম্ভ থেকে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন ও দেওয়াল লিখন মুছে দিলেন পুরসভার বিজ্ঞাপন, পার্ক এবং উদ্যান দফতরের কর্মীরা।

লোকসভার নির্বাচন বিধি অনুসারে সরকারি ভবন, অফিস বা সেতু থেকে রাজনৈতিক হোর্ডিং সরানোর নির্দেশ দিয়েছিল নিবার্চন কমিশন। কিন্তু তার পরেও শহরের কিছু সরকারি ভবনের গায়ে, অফিসে এমন বিজ্ঞাপন রয়ে গিয়েছে। তা সরিয়ে দেওয়ার জন্য কলকাতা পুরসভাকে জানানো হলেও সর্বত্র সেই নির্দেশ অনুযায়ী কাজ হয়নি বলে পুর প্রশাসনের কাছে অভিযোগে জানান উত্তর কলকাতা সংসদীয় কেন্দ্রের জেলা নিবার্চন আধিকারিক। সোমবারই এই মর্মে একটি চিঠি পাঠানো হয় কলকাতা পুরসভার কাছে। সেই চিঠিতে বলা হয়, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী সরকারি ভবনে রাজনৈতিক কোনও বিজ্ঞাপন থাকলে স্থানীয় প্রশাসন তা সরিয়ে দেবে। কিন্তু ওই আধিকারিক চিঠিতে জানিয়েছেন, পোস্তা উড়ালপুল এলাকা কলকাতা পুরসভার অধীনে হলেও সেখানে এই নিয়ম মানা হয়নি। প্রসঙ্গত, পোস্তা উড়ালপুল ভেঙে বছর দু’য়েক আগে বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটে। সেতু চাপা পড়ে অনেকের মৃত্যু হয়। তার পর থেকেই ওই সেতুতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বিজ্ঞাপন দেওয়ার হিড়িক বাড়ে। ওই আধিকারিক পুর প্রশাসনকে চিঠিতে জানান যে, বিজ্ঞাপন খুলতে পোস্তা উড়ালপুল এলাকায় পুরসভা কর্মী পাঠালেও তাতে কাজ হয়নি। সেই চিঠি পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ব্যবস্থা নিলেন পুর কর্তৃপক্ষ।

এখনও শহরের বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ডে একাধিক রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীর ছবি রয়েছে। সেগুলিও যে সরানো জরুরি, তা পুরসভাকে জানানো হচ্ছে বলে রাজ্য নির্বাচন অফিস সূত্রে জানানো হয়েছে। 

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত