জয়নগরেও ভোট সামলাবে কলকাতা পুলিশ
লালবাজারের খবর, জয়নগর লোকসভা কেন্দ্রের ২৩টি বুথ রয়েছে কলকাতা লেদার কমপ্লেক্স (কেএলসি) থানা এলাকায়। বর্ধিত এলাকার বিভাজনের ফলে রাজ্য পুলিশের হাতে থাকা ওই থানা বর্তমানে কলকাতা পুলিশের অধীন।
KP

জয়নগরের ভোটেও এ বার কলকাতা পুলিশ!

লালবাজারের খবর, জয়নগর লোকসভা কেন্দ্রের ২৩টি বুথ রয়েছে কলকাতা লেদার কমপ্লেক্স (কেএলসি) থানা এলাকায়। বর্ধিত এলাকার বিভাজনের ফলে রাজ্য পুলিশের হাতে থাকা ওই থানা বর্তমানে কলকাতা পুলিশের অধীন।

সরকারি খাতায় জয়নগর সুন্দরবনের অধীন। সেই জয়নগর লোকসভা কেন্দ্র কলকাতা পুলিশের আওতায় ঢুকে পড়ার খবরে অনেকেই রসিকতা করে বলছেন, ‘সুন্দরবনেও এ বার কলকাতা পুলিশ!’ কেউ কেউ অবশ্য মনে করিয়ে দিচ্ছেন, খাস শহরের জন্যই তৈরি হয়েছিল কলকাতা পুলিশ। কিন্তু তার এলাকা বেড়ে যাওয়ায় গত বছর কেএলসি থানা এলাকায় লালবাজারকে পঞ্চায়েত নির্বাচনও করাতে হয়েছিল। 

লালবাজারের খবর, আগামী ১৯ মে লোকসভা নির্বাচনের শেষ দিন জয়নগর কেন্দ্রে ভোট। ওই কেন্দ্রের অধীনে রয়েছে বাসন্তী, কুলতলি, গোসাবা, জয়নগর, মগরাহাট (পূর্ব), ক্যানিং (পশ্চিম) এবং ক্যানিং (পূর্ব) বিধানসভা কেন্দ্র। ক্যানিং (পূর্ব) কেন্দ্রের অন্তর্গত ভাতিপোঁতা, গঙ্গাপুর, আন্দুলগড়িয়া মৌসাল, নারায়ণতলা মৌজা রয়েছে কেএলসি থানা এলাকায়। ওই বিধানসভা কেন্দ্রের ১৪টি ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের ২৩টি বুথের দায়িত্ব সামলাতে হবে তাদের। আগে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিভিন্ন এলাকায় ভোটের জন্য কলকাতা পুলিশের বাহিনী পাঠানো হলেও এমন দায়িত্ব কখনও কাঁধে পড়েনি তাদের।

পুলিশ সূত্রের খবর, জয়নগরের ২৩টি বুথের প্রায় ২০ হাজার ভোটারের দায়িত্ব রয়েছে কলকাতা পুলিশের উপরে। ফলে লালবাজারের ১৬২টি বছরের ইতিহাসে এ বারই প্রথম সুন্দরবনের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার পরে সেখানকার দায়িত্ব সামলাবেন কলকাতা পুলিশের অফিসার ও কর্মীরা। তাই কাজে যাতে কোনও খামতি না থাকে, তার জন্য ইতিমধ্যেই লালবাজার পরিকল্পনা সেরে ফেলেছে। পুলিশের আধিকারিকেরা ঘুরে দেখেছেন প্রতিটি বুথের পরিকাঠামো। সূত্রের খবর, জয়নগর কেন্দ্রের লেদার কমপ্লেক্স থানা এলাকার অধীন যে সব বুথ রয়েছে, তার কোনওটিই স্পর্শকাতর নয়। তবে ওই থানা এলাকার মধ্যে থাকা ভাঙড় বিধানসভা কেন্দ্রের (যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত) বেশ কিছু বুথ স্পর্শকাতর বলে ঘোষিত রয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, পঞ্চায়েত ভোট পরিচালনা করলেও ওই এলাকায় পুলিশের কাজের ধারার সঙ্গে মূল শহরে পুলিশের কাজের ধারার অনেকটাই ফারাক রয়েছে। গ্রামীণ এলাকা হলেও ভোটের দিন যাতে কলকাতা পুলিশের অন্যান্য এলাকার মতো সেখানেও বাহিনী পৌঁছতে পারে, তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। সব ক’টি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকবে কি না, তা এখনও পরিষ্কার নয়। তবে ভোটের দিন যাতে মূল কলকাতার মতো সেখানেও ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের আশপাশে পুলিশ অনবরত টহল দিতে থাকে, তার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে লালবাজার সূত্রে জানা গিয়েছে।

নির্বাচনী নির্ঘণ্ট

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফল

  • সকলকে বলব ইভিএম পাহারা দিন। যাতে একটিও ইভিএম বদল না হয়।

  • author
    মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূলনেত্রী

আপনার মত