বিজয়ীদের ভিড় সামলাতে প্রস্তুতি কালীঘাটে
মন্দির প্রাঙ্গণে বুধবার বিকেলে গিয়ে দেখা গেল, একটি পদ্মফুল এ দিন বিক্রি হচ্ছে পাঁচ টাকায়। ১০৮টি জবা ফুলের মালার অবশ্য এ দিন দাম ছিল ২০ টাকা।
Kalighat

ভোটের ফল বেরোনোর দিকে চোখ রেখে প্রস্তুতি দোকানিদের। বুধবার, কালীঘাটে। ছবি: স্বাতী চক্রবর্তী

কালীপুজো বা নববর্ষের মতো ভিড় না হলেও ভোটে বিজয়ী প্রার্থীরা কালীঘাটে ভিড় করতে পারেন। আগাম সেটা বুঝেই ফল ঘোষণার আগের দিন থেকে কালীঘাট মন্দির সংলগ্ন দোকানে পুজোর উপচার সাজাতে ব্যস্ত দোকানিরা। বিভিন্ন রকম ফুলের পাশাপাশি রয়েছে নানা রকম পেঁড়া। দোকানিদের মতে, প্রতিবারই যে কোনও নির্বাচনের পরে মন্দিরে ভিড় বাড়ে। এই ভিড়ের রেশ থেকে যায় বেশ কয়েক দিন। তাঁদের আশা, এ বারেও তার কোনও ব্যতিক্রম হবে না।

মন্দির প্রাঙ্গণে বুধবার বিকেলে গিয়ে দেখা গেল, একটি পদ্মফুল এ দিন বিক্রি হচ্ছে পাঁচ টাকায়। ১০৮টি জবা ফুলের মালার অবশ্য এ দিন দাম ছিল ২০ টাকা। কালীঘাটের এক দোকানি এবং পাণ্ডা তাপস বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘ভোটে জিতে অনেক প্রার্থীই আসেন পুজো দিতে। সেই ভিড় সামলাতে হিমশিম খেতে হয়। তবে এ জন্য পুজোর উপচারের দাম আলাদা করে বাড়ে না।’’

পদ্মের দাম বৃদ্ধি কি কোনও রাজনৈতিক দলের চাহিদার কথা মাথায় রেখে? তাপসবাবু জানান, এই সময়ে পদ্মের উৎপাদন কম হওয়ায় দাম অনেকটাই বেশি থাকে। প্রার্থীদের অনেকেরই মানত থাকে জয়ের পরে মা কালীকে ১০৮টি পদ্মের মালা দিয়ে পুজো দেওয়ার। এমনিতে তো জবার মালার চাহিদা সারা বছরই থাকে। তবে, ফল প্রকাশের দিন বৃহস্পতিবার হওয়ায় সম্ভবত জয়ী প্রার্থীদের ভিড়ে ভাটা থাকতে পারে। বিজয়ী প্রার্থীদের অনেকেই কলকাতার বাইরে থেকে এখানে আসেন বলে পুরোহিতেরা জানান। তবে শনি এবং মঙ্গলবার তা অনেকটাই পুষিয়ে যাবে বলে মনে করছেন মন্দির সংলগ্ন ব্যবসায়ীরা।

মঙ্গলবার থেকেই মন্দিরের ফুল বিক্রেতারা মল্লিকঘাট ফুল বাজারে গিয়ে বেশি সংখ্যক পদ্ম মজুত করে রেখেছেন। চাহিদার কথা মাথায় রেখে নিয়ে আসা হয়েছে অন্যান্য ফুলও। বুধবার ভর দুপুরে দোকান বন্ধ থাকলেও দোকানিরা কিন্তু ব্যস্ত ছিলেন পদ্মের মালা তৈরি করতে। উত্তম গোস্বামী নামে পুজোর এক উপচার বিক্রেতা বলেন, ‘‘শুধু ফুল নয়, মিষ্টিতেও বিশেষত্ব রয়েছে। কালীঘাটের মূল প্রসাদী, পেঁড়া। সেই পেঁড়াতেও অবশ্য তারতম্য রয়েছে। মন্দির চত্বরে বিশেষ দিনগুলিতে মূলত তিন রকমের পেঁড়া পাওয়া যায়। বেশি মিষ্টি, কম মিষ্টি এবং ক্ষীরের। সে সবের কিলো প্রতি দর ৩০০-৫০০ টাকার মধ্যে। কম মিষ্টির পেঁড়ার দাম হয় সব থেকে বেশি। সে সব পেঁড়াও তৈরি করা হয়েছে।’’ বুধবার কালীঘাটে গিয়ে প্রতিমা দর্শন করে যান কেন্দ্রীয় বাহিনীর কয়েক জন জওয়ান।

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

মন্দির সূত্রের খবর, নির্বাচনের ফল ঘোষণার আগেই বিভিন্ন দলের অনেক প্রার্থীই সেখানে পুজো দিয়ে গিয়েছেন। নেতাদের আনাগোনার কথা ভেবে বিশেষ পুলিশি ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে। এমনিতেই সারা বছর মন্দির চত্বরে ‘ভিআইপি’দের আসা-যাওয়া লেগে থাকায় পুলিশ মোতায়েন করাই থাকে। তবে, উৎসবের বিশেষ দিনে পুলিশি নিরাপত্তা অনেক বেশি জোরদার করা হয় বলেও মন্দির কর্তৃপক্ষ জানান। নিয়ম অনুযায়ী, কালীঘাট মন্দির দুপুর দেড়টা থেকে বিকেল ৪টে পর্যন্ত বন্ধ থাকে। সেই সময়ে দর্শনার্থীকে গর্ভগৃহে প্রবেশ করতে দেওয়া হয় না। বৃহস্পতিবারও তার অন্যথা হবে না।

কালীঘাট মন্দির কমিটির সহ সভাপতি বিদ্যুৎ হালদার বলেন, ‘‘আজ, বৃহস্পতিবার ভোটের ফল বেরোতে সন্ধ্যে গড়িয়ে যাবে বলে শুনেছি। তাই সাত সকালে ভিড় হওয়ার সম্ভাবনা নেই। সন্ধ্যার পর থেকে হয়তো ভিড় বাড়তে পারে। কিন্তু এই ভিড় এক দিনে শেষ হবে না। আগামী কয়েক দিন ধরে চলবে পুজোর পর্ব। ফলে মন্দিরে পুলিশি নিরাপত্তা থাকবেই। পাশাপাশি ভিআইপি-দের নিজস্ব নিরাপত্তাও থাকবে।’’

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত