সাংসারিক অশান্তির জেরে স্ত্রীকে ছুরি মেরে জখম করার পরে নিজের পেটে ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে, ঢাকুরিয়ার রবীন্দ্র সরোবর থানা এলাকার পঞ্চাননতলা বস্তিতে। অভিযুক্ত স্বামী সুশীল মণ্ডলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সুশীলের স্ত্রী গীতা মণ্ডল ঢাকুরিয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, গীতার অবস্থা স্থিতিশীল।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সুশীল আর গীতা দু’জনেই একটি বেসরকারি নিরাপত্তা সংস্থায় কাজ করতেন। দিন কয়েক আগে গীতা সেই কাজ ছেড়ে দেন। তার পর থেকে বাড়িতেই ছিলেন তিনি। এ দিন বিকেলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কোনও কারণে বচসা বাধে। তখনই আচমকা গীতার পিঠে ছুরি মেরে বসেন সুশীল। ছুরির আঘাতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন গীতা। এর পরে সুশীল নিজের পেটেও ছুরি চালিয়ে দেন। গীতার আর্তনাদ শুনে পাড়ার লোকজন ছুটে আসেন। এক স্থানীয় বাসিন্দা জানান, বাড়ির কাছেই গীতা ও সুশীলের মধ্যে বেশ কিছু ক্ষণ ধরে ঝগড়া হচ্ছিল। তাঁদের মধ্যে প্রায়ই এমন ঝগড়া হত বলে পড়শিরা জানিয়েছেন। কিন্তু বচসার জেরে সুশীল যে ছুরি মেরে বসবেন, তা তাঁরা ভাবতেও পারেননি। তাঁরা জানান, মাটিতে লুটিয়ে পড়া অবস্থায় গীতার শরীর রক্তে ভেসে যাচ্ছিল। ওই অবস্থায় দু’জনকেই স্থানীয় বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান পড়শিরা।

পুলিশ জানিয়েছে, প্রাথমিক তদন্তে অনুমান, সুশীলের বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কের জেরেই এ দিনের অশান্তি ও হামলা।