গ্রাহক নিজে কিছু কেনাকাটা করেননি। অথচ, তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে গায়েব হয়ে গেল কয়েক লক্ষ টাকা! সল্টলেকের বাসিন্দা এক বৃদ্ধের এমন অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নেমে শনিবার হুগলির আরামবাগ থেকে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে বিধাননগর সাইবার থানার পুলিশ। ধৃতের নাম আব্দুল হায়াত হামিদুল কাদের (৩০)। রবিবার ধৃতকে বিধাননগর আদালতে তোলা হলে পাঁচ দিনের পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক।

পুলিশ সূত্রের খবর, চলতি বছরের জুলাই মাসে ওই বৃদ্ধ সাইবার থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, অনলাইনে জিনিস কেনাবেচার একটি ওয়েবসাইট থেকে কয়েক কিস্তিতে সোনা কেনা হয়েছে। কিন্তু অভিযোগকারী পুলিশকে জানিয়েছিলেন, তিনি কোনও সোনা কেনেননি। তদন্তকারীরা এর পরে আরও জানতে পারেন, ওই সোনার দাম বাবদ কয়েক লক্ষ টাকা এটিএম কার্ডের মাধ্যমে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও পেটিএমের মাধ্যমে ওই বৃদ্ধের অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা সরানো হয়েছে। যদিও ব্যাঙ্কের তরফে কোনও এসএমএস পাননি তিনি। সেটাই প্রাথমিক ভাবে ভাবিয়ে তোলে তাঁদের।

তদন্ত চালানোর পথে পুলিশ জানতে পারে, ওই বৃদ্ধ মোবাইলের বিল মেটানোর জন্য সল্টলেকের একটি দোকানে যেতেন। কিন্তু বয়সের কারণে নিজে বিল মেটাতে পারতেন না। দোকানেরই কর্মী আব্দুল তাঁর বিল মিটিয়ে দিত। তদন্তকারীদের দাবি, ধৃত যুবক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, মোবাইলের বিল দেওয়ার আগে সে-ই বৃদ্ধের এটিএম কার্ড থেকে কয়েক কিস্তিতে সোনা কিনেছিল। পাশাপাশি, ওই লেনদেন সংক্রান্ত এসএমএস বৃদ্ধের মোবাইলে আসার পরে আব্দুল তা মুছে ফেলে বলেও অনুমান পুলিশের। যে কারণে অভিযোগকারী ঘুণাক্ষরেও জানতে পারেননি, কেন তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা সরানো হয়েছে।

এমন ঘটনার পরে প্রবীণ নাগরিকদের প্রতি পুলিশের পরামর্শ, তাঁরা যেন ব্যক্তিগত কোনও তথ্য যেমন এটিএম কার্ডের পিন বা কোনও পাসওয়ার্ড অচেনা কোনও ব্যক্তিকে না দেন।