কলিং বেল বাজায় দরজা খুলেছিলেন মহিলা। অভিযোগ, এর পরেই তাঁকে মাথায় আঘাত করে নগদ টাকা ও গয়না নিয়ে চম্পট দিল এক দুষ্কৃতী। শুক্রবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে সল্টলেকে।

পুলিশ জানিয়েছে, সল্টলেকের বিডি ব্লকে একটি তেতলা ফ্ল্যাটের দোতলায় স্বামী ও ছেলের সঙ্গে থাকেন রেণু ধোনা নামে ওই মহিলা। এ দিন সকালে স্বামী ও ছেলে ব্যবসার কাছে বেরিয়ে যান। বাড়িতে একাই ছিলেন বছর ছেচল্লিশের ওই মহিলা। অভিযোগ, দুপুর সওয়া দু’টো নাগাদ কলিং বেলের আওয়াজ শুনে তিনি দরজা খুলতেই তাঁর মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করে অপরিচিত এক যুবক। এর পরে ওই মহিলাকে ঘরের ভিতরে নিয়ে যায় সে।

ওই মহিলার বাড়ির লোকজন পুলিশকে জানিয়েছেন, যে ঘরে রেণুদেবীকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সেখানেই ছিল আলমারি। অভিযোগ, ওই মহিলাকে বসিয়ে রেখে, ভয় দেখিয়ে আলমারির চাবি হাতিয়ে নেয় দুষ্কৃতী। তার পরে আলমারি খুলে নগদ ৮০ হাজার টাকা ও গয়না নিয়ে চম্পট দেয়। দুষ্কৃতী চলে যাওয়ার পরে রেণুদেবী ফোন করে ছেলেকে পুরো ঘটনা জানান। খবর পেয়ে তিনি এসে মাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করেন।

বিষয়টি জানিয়ে বিধাননগর উত্তর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে ওই মহিলার পরিবার। স্থানীয় সূত্রের খবর, সল্টলেকে অতীতে ঘটা এমন ধরনের ঘটনায় দেখা গিয়েছে, মূলত প্রবী‌ণ নাগরিকদের লক্ষ্য করে বাড়িতে ঢুকে লুটপাট চালাত দুষ্কৃতীরা। ২০১২ সালে কমিশনারেট হওয়ার পরে পুলিশ এমন ঘটনা রুখতে বিশেষ জোর দেয়। বহিরাগতদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে শুরু হয় দুষ্কৃতীদের ধরপাকড়। তাতে এমন ঘটনা কিছুটা কমেছিল। যদিও এ দিনের ঘটনায় চিন্তা বেড়েছে পুলিশের। তবে রেণুদেবী যে একা ছিলেন এবং আলমারিতে যে টাকা-গয়না ছিল, সে কথা দুষ্কৃতী কী ভাবে জানল, তা নিয়ে ধন্দে তদন্তকারীরা। মহিলার সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি জানার চেষ্টা করছেন তাঁরা।