• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মাঝরাতে বোমা ডাক্তারের চেম্বারে, আতঙ্ক

Bombing
নিশানা: চেম্বারের দেওয়ালে বোমার দাগ। সোমবার, টিটাগড়ে। নিজস্ব চিত্র

মাঝরাতে বোমা পড়ল চিকিৎসকের চেম্বারে। রবিবার গভীর রাতে টিটাগড়ের ব্রহ্মস্থান এলাকায় ওই ঘটনায় জখম হয়েছেন দু’জন। যদিও তাঁদের চোট তেমন গুরুতর নয় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। তবে এই ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়।

প্রবীণ কুমার নামে ওই চিকিৎসক টিটাগড় থেকে সিপিএমের টিকিটে দু’বার বিধায়ক হয়েছিলেন। বর্তমানে অবশ্য তিনি সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত নন। তবে সব দলের নেতৃত্বের সঙ্গে সদ্ভাব রয়েছে তাঁর। ফলে কে বা কারা এমন ঘটাল, সে বিষয়ে তাঁর কোনও ধারণা নেই বলে জানিয়েছেন প্রবীণবাবু। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার তদন্ত চলছে। এই ঘটনা ঘিরে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা।

টিটাগড়ের ব্রহ্মস্থানে বোমাবাজি নতুন নয়। এক সময়ে নিয়মিত বোমাবাজি হত এই এলাকায়। তার পরে বেশ কিছু দিন শান্ত ছিল এলাকা। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার রাত সাড়ে তিনটে নাগাদ বোমার শব্দে কেঁপে ওঠে প্রবীণবাবুর চেম্বার। পরপর দু’টি বোমা ছোড়া হয়। চেম্বারের সামনেই একটি অনুষ্ঠান-বাড়ি রয়েছে। সেখানে রাতে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল। ওই বাড়ির সামনে ঘুমিয়ে ছিলেন দু’জন। বোমার স্‌প্লিন্টার লাগে তাঁদের পায়ে।

বোমা যে চেম্বার লক্ষ্য করেই ছোড়া হয়েছে, সে বিষয়ে নিশ্চিত পুলিশ। কারণ, বোমার আঘাতে চেম্বারের একটি জানলা উড়ে গিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ক্লিনিকের ভিতরে থাকা চেয়ার-টেবিল এবং বেশ কিছু চিকিৎসা সরঞ্জামেরও।

প্রবীণবাবুর চেম্বারের পাশেই রয়েছে কয়েকটি বহুতল। রাতে বোমার শব্দ পেয়ে সেখানকার আবাসিকেরা বাইরে বেরিয়ে আসেন। কিছু ক্ষণের মধ্যে পুলিশ পৌঁছে জখমদের বি এন বসু হাসপাতালে নিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসার পরে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। পুলিশ জানিয়েছে, এলাকার সমস্ত সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পরীক্ষা করে ঘটনার কিনারা করার চেষ্টা চলছে।

প্রবীণবাবু বর্তমানে সক্রিয় রাজনীতি থেকে বহু দূরে। শুধুমাত্র চিকিৎসা নিয়েই রয়েছেন। তিনি বলেন, ‘‘আমি চেম্বার থেকে একটু দূরে থাকি। ভোরে এই এলাকা দিয়েই প্রাতর্ভ্রমণে যাই। সোমবার ভোর সাড়ে চারটে নাগাদ বাড়ি থেকে বেরোনোর পরেই ঘটনার খবর পাই। এসে দেখি এই অবস্থা।’’

কারা এমন কাজ করতে পারে বলে তাঁর মনে হয়? চিকিৎসকের জবাব, ‘‘যখন সক্রিয় রাজনীতি করতাম, তখন কারও সঙ্গে আমার শত্রুতা ছিল না। এখনও নেই। সব দলের সঙ্গেই আমার সম্পর্ক যথেষ্ট ভাল।’’ তবে তাঁর চেম্বারকে যে টার্গেট করেছিল দুষ্কৃতীরা, সে বিষয়ে নিশ্চিত প্রবীণবাবু।

ঘটনার খবর পেয়ে এ দিন ব্রহ্মস্থানে আসেন টিটাগড়ের পুর প্রধান, তৃণমূলের প্রশান্ত চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘‘ডাক্তারবাবু এলাকায় সর্বজনশ্রদ্ধেয়। কেউ নিশ্চয় ফায়দা লুটতে এমন কাজ করেছে। আগে যারা প্রকাশ্যে বোমা-আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ঘুরত, এটা তাদেরই কাজ। বর্তমানে টিটাগড় শান্ত বলে তাঁদের অসুবিধা হচ্ছে। সেই জন্যই বাসিন্দাদের সন্ত্রস্ত করতে এই পথ নিয়েছে দুষ্কৃতীরা।’’ সিপিএমের গার্গী চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চল তো সমাজবিরোধীদের মুক্তাঞ্চলে পরিণত হয়েছে। প্রতি রাতে কোথাও না কোথাও বোমাবাজি হচ্ছে।’’ কিন্তু কে করল বোমাবাজি? গার্গীর জবাব, ‘‘কী করে বলব? তৃণমূল থেকে বিজেপি, আর বিজেপি থেকে তৃণমূলে যাওয়া চলছে। অপরাধীরা ধরা না পড়লে আমরা থানার সামনে ধর্নায় বসব।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন