• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

চড়িয়াল খালের পাশে তৈরি বাইপাস

road construction
কর্মযজ্ঞ: চড়িয়াল খালের উপরে চলছে কাজ। ছবি: অরুণ লোধ

জার আর রাস্তার উপরে বসা হকারের ভিড়ে এমনিতেই হাঁটাচলা যথেষ্ট বিপজ্জনক হয়ে গিয়েছিল। সেই পথেই বাস-লরিও চলত। ফলে দুর্ঘটনাও ঘটত মাঝেমধ্যেই। অথচ কলকাতা থেকে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সাতগাছিয়া, বাখরাহাট, বিবিরহাট, রায়পুর যেতে এটিই ছিল প্রবেশপথ। এ বার সেই পথের বাধা কাটছে, গাড়ির যাতায়াতের জন্য হচ্ছে নতুন রাস্তা, জানাচ্ছেন কলকাতা পুর কর্তৃপক্ষ।

ডায়মন্ড হারবার রোডের জোকায়, চড়িয়াল খালের ধারে তৈরি হয়েছে সেই বাইপাস। কাজ শেষ হয়েছে সম্প্রতি। এখন শুধু উদ্বোধন আর নামকরণের প্রতীক্ষা। কলকাতা পুরসভার রাস্তা দফতর সূত্রের খবর, এক কিলোমিটার দীর্ঘ এই রাস্তার জমি সেচ দফতরের। প্রায় ২২ ফুট চওড়া রাস্তাটি করতে খরচ হয়েছে আড়াই কোটি টাকা। পুরো টাকা দিয়েছে রাজ্য পরিবহণ দফতর।

পুরসভার সংশ্লিষ্ট দফতর সূত্রের খবর, পিচের তৈরি এই রাস্তাটি দিয়ে অনায়াসে বড় এবং ভারী গাড়িও যেতে পারবে। দক্ষিণ ২৪ পরগনার ওই সব এলাকায় ঢুকতে নতুন এই প্রবেশপথটি বাইপাসের কাজ করবে। রাস্তায় এলইডি আলোর বাতিস্তম্ভ বসানো হয়েছে। গত বছরের মাঝামাঝি এই কাজ শুরু হয়েছিল।

স্থানীয় সূত্র থেকে জানা গিয়েছে, খালপাড়ের এই রাস্তাটি ছিল কাঁচা। ফলে একটানা ভারী বৃষ্টি হলেই হাঁটার অযোগ্য হয়ে যেত সেটি। সাইকেল বা রিকশা ছাড়া বিশেষ কোনও গাড়ি চলত না এ পথে। এই রাস্তাটি পিচের হওয়ায় অসংখ্য মানুষ উপকৃত হবেন বলে মানছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

পাশাপাশি ওই এলাকাতেই শুরু হয়েছে আরও একটি কাজ। ডায়মন্ড হারবার রোডের পাশে চড়িয়াল খালের উপরে তৈরি হচ্ছে একটি ব্রিজ। ডায়মন্ড হারবার রোডের দু’ধারে দু’টি ব্রিজ ছিল আগেই। প্রতিটি ১২-১৪ ফুট চওড়া সেই ব্রিজ দু’টি দিয়ে কলকাতায় ঢোকা ও বেরোনোর গাড়ি চলাচল করত। দু’টিই তৈরি হয়েছিল বছর তিরিশেক আগে। সেই কাজও করেছিল রাজ্য পূর্ত দফতর। এ বার এক দিকের নতুন ব্রিজটিও করছে পূর্ত দফতরের আলিপুর ডিভিশন|

দফতরের এক আধিকারিক ইঞ্জিনিয়ার জানান, নতুন ব্রিজটি লম্বায় ৯০ ফুট এবং চওড়ায় ১৮ ফুট হচ্ছে। ২০১৬ সালে কাজ শুরু হয়েছিল, শেষ হওয়ার সময়সীমা জানুয়ারি ধার্য হয়েছে। এ জন্য খরচ হচ্ছে ১ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা। ভারী গাড়ি যাতায়াতে সক্ষম হচ্ছে এই ব্রিজটি। চড়িয়াল খালের অন্য দিকে, আগের ব্রিজের পাশ দিয়ে আরও একটি ব্রিজ করার পরিকল্পনাও হচ্ছে। পূর্ত দফতর সূত্রের খবর, এর ফলে ডায়মন্ড হারবার রোডের উপরে যানবাহনের চাপের কিছুটা রাশ টানা যাবে।
এসএমএস করলেও জবাব আসেনি।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন