কোনও প্রকল্পের রুটিন কাজের জন্য পরামর্শদাতা সংস্থা নিয়োগ করা যাবে না। কলকাতা পুর কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে নির্দেশিকাও জারি করা হয়েছে। 

পুরকর্তাদের অনুমান, দীর্ঘদিন ধরে পুরসভায় রুটিন কাজের জন্যও কয়েকটি বিভাগের তরফে পরামর্শদাতা সংস্থা নিয়োগের হিড়িক পড়ে গিয়েছিল। সে জন্য অতিরিক্ত টাকাও খরচ হচ্ছিল। ফলে পুরসভার ভাঁড়ারে চাপ পড়ছিল। সেই পরিস্থিতি ঠেকাতে এই সিদ্ধান্ত। এক পদস্থ পুরকর্তার কথায়, ‘‘পরামর্শদাতা সংস্থা নিয়োগের জন্য নির্দিষ্ট নিয়ম করা হয়েছে। একমাত্র বিশেষ 
ক্ষেত্রেই পরামর্শদাতা সংস্থা নিয়োগ করা যেতে পারে।’’

সেই বিশেষ ক্ষেত্রগুলি কী?

পুরসভা সূত্রের খবর, যে প্রকল্পে কাজে ঝুঁকির আশঙ্কা থাকবে, তেমন ক্ষেত্রে পরামর্শদাতা নিয়োগের ছাড় দেওয়া হবে। তবে তা-ও ঠিক করে দেবেন পুর কর্তৃপক্ষই। শুধু তাই নয়, যে সব কাজে পরিদর্শন করার প্রয়োজন রয়েছে, সে ক্ষেত্রেও পরামর্শদাতা নিয়োগ করা যেতে পারবে। এক আধিকারিকের কথায়, ‘‘অনেক জায়গাতেই তৃতীয় পক্ষের পরিদর্শন প্রয়োজন হয়। সেখানে কনসালট্যান্ট নিয়োগ করা যেতে পারে।’’

পুরকর্তাদের একাংশের বক্তব্য, এক দিক থেকে এ সিদ্ধান্ত স্বাগত। কারণ অনেক সময়ই প্রয়োজন না থাকলেও এত দিন পরামর্শদাতা সংস্থা নিয়োগ করা হচ্ছিল। তার ফলে সেই সংস্থাকে মোটা টাকা দিতে হচ্ছিল। অনেক ক্ষেত্রে আবার সেই সংস্থা প্রকল্পের রিপোর্ট জমা করতেও দেরি করছিল। এমন কয়েকটি ঘটনা দেখার পরেই পুর কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেন, বিশেষ কারণ ছাড়া পরামর্শদাতা সংস্থা নিয়োগ করা হবে না। এক আধিকারিকের কথায়, ‘‘পুর ইঞ্জিনিয়ার বা আধিকারিকেরা যে কাজটা পারেন, সেখানে কোনও পরামর্শদাতা সংস্থাকে নিয়োগ করাটা অর্থহীন। এই সিদ্ধান্তের ফলে পুরসভার টাকা বাঁচবে।’’