রোগী-মৃত্যুর জেরে নার্সিংহোমে ভাঙচুর চালানোর অভিযোগ উঠল রোগীর পরিজনেদের বিরুদ্ধে। বুধবার গভীর রাতে, দক্ষিণ শহরতলির নোদাখালি থানার ডোঙ্গারিয়া এলাকার ঘটনা। 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, চালগোলা এলাকার বাসিন্দা সুনীল দাস (৬০) বুকে ব্যথা নিয়ে বুধবার রাতে ওই নার্সিংহোমে ভর্তি হয়েছিলেন। বৃহস্পতিবার ভোরে তাঁর মৃত্যু হয়। এর পরেই স্থানীয় ব্যবসায়ী ও এলাকার বাসিন্দারা ওই নার্সিংহোমে চড়াও হয়ে ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ। এমনকি নার্সিংহোমের অফিসের সমস্ত জিনিসপত্র ভাঙচুর করা হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে এই ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি বলে পুলিশ সূত্রে খবর। 

পেশায় ঘড়ি ব্যবসায়ী সুনীলবাবুর পরিজনদের অভিযোগ, বুধবার রাতে ওই নার্সিংহোমে চিকিৎসক ছিলেন না, তাই সুনীলবাবুর চিকিৎসা হয়নি। তাঁদের আরও অভিযোগ, রোগীর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে রাতে নার্সিংহোমের তরফে জানানো হয়েছিল। কিন্তু পরের দিন সকালে সুনীলবাবুর মৃত্যুর খবর দেওয়া হয়। তবে নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষের দাবি, সুনীলবাবু রাতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁকে আইসিসিইউয়ে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানে চিকিৎসকেরা তাঁকে পরীক্ষাও করেন। কিন্তু ভোরে হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হন সুনীলবাবু।