সরকারি হাসপাতালের মেন বিল্ডিং-এর সামনে একটি বাঁশের মাথায় পতপত করে উড়ছে বিজেপির দলীয় পতাকা। সোমবার দুপুরে এই দৃশ্য দেখে কার্যত অবাক হয়ে যান হাসপাতালে আসা রোগীর আত্মীয়েরা। প্রশ্ন ওঠে, গোটা হাসপাতাল থেকে যখন শাসক দল-সহ সব দলের পতাকা ও ফেস্টুন সরিয়ে নেওয়া হয়েছে, তখন নির্বাচন দফতরের নির্দেশ অমান্য করে কে বা কারা ওই পতাকা লাগালেন? 

এ দিন এমনই ঘটনা ঘটেছে হাওড়া জেলা হাসপাতালে। সোমবার দুপুরে এ নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে হাসপাতাল চত্বরে। সরকারি জায়গায় ওই পতাকা লাগানো নিয়ে শুরু হয়ে যায় চাপান-উতোর। বিজেপির দাবি, তাঁদের দলের তরফ থেকে কোনও কর্মী ওই পতাকা লাগায়নি। বিজেপির কোনও সমর্থক ওই কাজ হয়ত করেছেন। দলের কেউ এই কাজে যুক্ত নয়। তৃণমূলের পক্ষ থেকে বিষয়টি নির্বাচন কমিশন ও পুলিশকে জানানো হয়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে সেই পতাকা খুলে দেয়। 

হাওড়া জেলা বিজেপির দফতর সম্পাদক বিমল প্রসাদ বলেন, ‘‘বাইরের কেউ হয়তো এটা করতে পারে। কিন্তু আমাদের দলের পক্ষ থেকে কেউ এই কাজ করেনি। হাসপাতাল চত্বরে সিসিটিভি রয়েছে। সেটা খতিয়ে দেখলেই তো পতাকা কে লাগিয়েছে তা বোঝা যাবে।’’

এই ঘটনা প্রসঙ্গে হাওড়া জেলা তৃণমূল সভাপতি অরূপ রায় বলেন, ‘‘বিষয়টি তিনি মৌখিক ভাবে জেলাশাসককে জানিয়েছেন এবং লিখিত ভাবে নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ করছেন। সরকারি হাসপাতালের ভিতরে কখনও দলীয় পতাকা থাকতে পারে না।’’