চিকিৎসার জন্য সকাল হতে না হতেই হাজির হতে হয় সরকারি হাসপাতাল চত্বরে। কয়েক ঘণ্টা লাইনে দাঁড়ানোর পরে বহির্বিভাগে রোগীকে দেখানোর টিকিট হাতে পান তাঁর পরিজনেরা। এর পরে ফের প্রতীক্ষা। দিনভর লাইনে দাঁড়িয়ে অবশেষে চিকিৎসকের কাছে পৌঁছতে পারেন রোগী। দূর দূরান্তের জেলা থেকে আসা রোগীদের ভোগান্তি তো আরও বেশি। ভোর থেকে বহির্বিভাগের সামনে লাইন দেওয়ার কারণে অনেক সময়েই খোলা আকাশের নীচে রাত কাটাতে হয় রোগী ও তাঁর পরিজনদের।

এ শহরের সরকারি হাসপাতালগুলিতে রোগী ভোগান্তির এই চেনা ছবিটিই এ বার বদলাতে চলছে রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর। সিদ্ধান্ত হয়েছে, হাসপাতাল চত্বরে দাঁড়িয়ে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষার বদলে এ বার বাড়িতে বসেই অনলাইনে সরকারি হাসপাতালের বহির্বিভাগের টিকিট কাটা যাবে। আজ, শুক্রবার থেকে এসএসকেএম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এই পরিষেবা চালু হবে। এসএসকেএমে রোগীর সংখ্যা বেশি হওয়ার কারণে এই সরকারি হাসপাতালে এমন পরিকল্পনা প্রথমে শুরু করা হচ্ছে। পরিষেবার মান বাড়লে অন্য মেডিক্যাল কলেজেও এই ব্যবস্থা চালু করা হবে।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রের খবর, দফতরের নিজস্ব ওয়েবসাইটে বহির্বিভাগের টিকিট কাটার ব্যবস্থা থাকবে। ওই ওয়েবসাইট খুলে ‘ওপিডি টিকিট বুকিং’ লেখা অংশে গেলে হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগ চলে আসবে। নির্দিষ্ট বিভাগে কোন দিন, কোন চিকিৎসক থাকবেন, তারও উল্লেখ থাকবে সেখানে। সেখানেই কোনও নির্দিষ্ট দিনে টিকিট বুকিং করতে চাইলে দিতে হবে মোবাইল নম্বর। সেই নম্বরে পাঠানো ওটিপি ওয়েবসাইটে দিলে তার পরেই টিকিট বুক হয়ে যাবে। সেই টিকিটের প্রিন্ট আউট নিয়ে হাসপাতালে যেতে হবে রোগী ও তাঁর পরিবারকে। হাসপাতালের প্রতিটি বিভাগের নিরাপত্তারক্ষী ওই প্রিন্ট আউটে থাকা বারকোড মিলিয়ে দেখার পরেই রোগী পৌঁছে যেতে পারবেন চিকিৎসকের কাছে।

নিয়ম অনুযায়ী, হাসপাতালে দেখাতে যাওয়ার নির্দিষ্ট দিনের এক সপ্তাহ আগে থেকে অনলাইনে টিকিট কাটা যাবে। একই মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে একসঙ্গে সর্বাধিক চারটি বহির্বিভাগের টিকিট কাটা যাবে। এত দিন হাসপাতাল চত্বরে দু’টাকা দিয়ে বহির্বিভাগের টিকিট কাটতে হলেও অনলাইনে সেই টিকিট কাটা যাবে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।

আরও পড়ুন: বিরুদ্ধ স্বরকে দাবিয়ে দিতে শুরু হয়েছে ভাষা-সন্ত্রাস

এসএসকেএমের কর্তাদের একাংশ জানাচ্ছেন, নতুন এই ব্যবস্থা চালু হলে বহির্বিভাগের বাইরে রোগীদের লাইনের চাপ কমবে। সেই সঙ্গে হাসপাতাল চত্বরে দালাল চক্রের দাপটও কমবে অনেকটাই। ওই কর্তারা জানাচ্ছেন, অনেক সময়েই বহির্বিভাগের বাইরে লম্বা লাইনের সুযোগ নিয়ে টাকা লেনদেনের অভিযোগ ওঠে। বাড়তি টাকা দিলে সহজে বহির্বিভাগের টিকিট কেটে দেওয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয় দূরদূরান্ত থেকে আসা রোগীর পরিবারদের। কিন্তু অনলাইনে টিকিট কাটার সুযোগ থাকলে এই লেনদেনের সুযোগ থাকবে না। 

এসএসকেএমের সুপার রঘুনাথ মিশ্র এ নিয়ে বলেন, ‘‘অনলাইনে টিকিট কাটার ব্যবস্থার পাশাপাশি, হাসপাতালেও একাধিক কাউন্টার থাকবে। সাধারণ মানুষ এই ব্যবস্থার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারছেন কি না, তা দেখার পরে পুরো বিষয়টিই অনলাইনে করা হবে। তবে, বাইরে থেকে টিকিট কাটার পাশাপাশি হাসপাতালেও অনলাইনে টিকিট কেটে দেওয়া হবে। এই ব্যবস্থায় যাতে আরও দ্রুত পরিষেবা পাওয়া যায়, তা দেখা হবে।’’