হৃৎযন্ত্রে অস্ত্রোপচারের জন্য কয়েক লক্ষ টাকার দরকার। সেই টাকা পেতে পরিচিত এক স্বর্ণকারের হাতে পুরনো সোনার গয়না তুলে দিয়েছিলেন বালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের বাসিন্দা এক মহিলা। সেই সোনা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে স্বর্ণকারকে গ্রেফতার করেছে বালিগঞ্জ থানার পুলিশ। স্বর্ণকারের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার করা হয়েছে হাতিয়ে নেওয়া সোনাও। 

ধৃত স্বর্ণকারের নাম প্রদীপ সীট। তাঁর বাড়ি হুগলির চণ্ডীতলায়। পুলিশ জানায়, ভবানীপুরেও তাঁর একটি সোনার দোকান রয়েছে। আদালতের নির্দেশে বর্তমানে তিনি পুলিশি হেফাজতে রয়েছেন। পুলিশ জানায়, বালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের একটি আবাসনের চারতলার ফ্ল্যাটে থাকেন সরোজ লাডিয়া মিত্র নামে ওই মহিলা। তাঁর স্বামী সুব্রত মিত্র বছর কয়েক আগে মারা গিয়েছেন। গত বছর সরোজদেবীর হৃৎযন্ত্রে সমস্যা দেখা দেয়। চিকিৎসকেরা তাঁকে অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেন। 

অস্ত্রোপচারের জন্য নগদ টাকার প্রয়োজন হওয়ায় নিজের গয়না বিক্রি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন সরোজদেবী। গত বছর সেপ্টেম্বরে তিনি প্রদীপকে ফোন করে নিজের বাড়িতে ডেকে নেন। পুলিশের কাছে ওই মহিলার অভিযোগ, তিনি কয়েক দফায় ওই স্বর্ণকারকে বেশ কয়েক ভরির গয়না দেন। সোনার গয়নাগুলি কত খাঁটি, তা জানার জন্য সময় চান প্রদীপ। মহিলা তাঁকে অনুরোধ করেছিলেন, প্রয়োজন হলে পুরনো সোনার গয়না গলিয়ে ছোট মাপের কিছু গয়না তাঁর জন্য গড়িয়ে রেখে বাকিটা বিক্রি করে দিতে। সরোজদেবী পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন, প্রদীপ অধিকাংশ গয়না ফেরত দেননি। তা বিক্রি করে পাওয়া টাকাও তাঁকে দেওয়া হয়নি। মহিলার আরও অভিযোগ, চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে একাধিক বার তিনি প্রদীপের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করেন। কিন্তু ওই স্বর্ণকার তাঁর ফোন ধরেননি। এর পরেই বালিগঞ্জ থানার পুলিশ প্রদীপের বাড়িতে হানা দেয়। সেখান থেকে উদ্ধার হয় গয়না।