ভারী যানবাহনের জন্য টালা সেতু বন্ধ থাকার কারণে সংলগ্ন এলাকায় প্রতিদিন তীব্র যানজট হচ্ছে। নাজেহাল হচ্ছেন অফিসযাত্রী থেকে সাধারণ মানুষ। সেই ভোগান্তি কমাতে টালা বা চিৎপুর সেতুর কাছে খাল ও রেললাইনের উপর দিয়ে ঢালাই রাস্তা-সহ অস্থায়ী সেতু নির্মাণ করা যায় কি না, তা দেখতে সোমবার সকালে কাশীপুর, চিৎপুর-সহ ওই এলাকার বিভিন্ন রাস্তা ঘুরে দেখলেন কলকাতা ট্র্যাফিক পুলিশের আধিকারিকেরা।

লালবাজারের খবর, টালা সেতু দিয়ে আপাতত ছোট গাড়ি চললেও তার গতি বেঁধে দেওয়া হয়েছে ১০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায়। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন রুটের বাস ঘুরিয়ে দেওয়া হচ্ছে বেলগাছিয়া রোড দিয়ে। এর ফলে দমদম চিড়িয়ামোড়, বেলগাছিয়া রোড, আর জি কর রোডে যানজটে নাকাল হচ্ছেন মানুষজন। ওই রাস্তাগুলিতে গাড়ি চাপ কমানোর জন্য এ দিন ডিসি (ট্র্যাফিক) সন্তোষ পাণ্ডে ওই সব এলাকা ঘুরে দেখেন।

তবে পুলিশের একাংশ জানিয়েছে, ডিসি নিজে সব সম্ভাবনা খতিয়ে দেখলেও বিকল্প পথ ঠিক হয়নি। কারণ, কলকাতায় রেলের সবচেয়ে বড় ইয়ার্ড রয়েছে চিৎপুরে। ওই এলাকা দিয়ে বিকল্প রাস্তা করতে হলে প্রয়োজন লেভেল ক্রসিংয়ের। যা রেলের সঙ্গে আলোচনাসাপেক্ষ। রেল অবশ্য ওই এলাকা দিয়ে লেভেল ক্রসিংয়ের সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়েছে। এ ছাড়া কাশীপুর রোড বাদে বাকি রাস্তা তৈরি হলেও সেখান দিয়ে বড় গাড়ি চলবে কি না, রয়েছে সেই সংশয়ও।

ট্র্যাফিক পুলিশের এক আধিকারিক জানান, দমদম চিড়িয়ামোড় থেকে খগেন চ্যাটার্জি রোড, কাশীপুর রোড হয়ে বাগবাজারের দিকে মিনিবাস চালানো হতে পারে। সব দিকই খতিয়ে দেখা হচ্ছে।