• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

জনসংযোগে নতুন অ্যাপ চালু দক্ষিণ দমদমে

app
নতুন এই অ্যাপে অভিযোগ জানাতে পারবেন পুর নাগরিকেরা।

পাড়ার কল থেকে জল পড়ে নষ্ট হচ্ছে। রাস্তায় মৃত পশু পড়ে রয়েছে কিংবা নর্দমা উপচে পড়ছে পচা জলে। দেখেও দেখেন না অনেকেই। কারণ, পুরসভায় অভিযোগ জানাতে বিস্তর ঝামেলা পোহাতে হয়। তা না হলে ফোন করে অভিযোগ করতে হবে। 

নাগরিকদের সেই অসুবিধার কথা ভেবেই পুর ভোটের মুখে এ বার মোবাইল অ্যাপ চালু করল দক্ষিণ দমদম পুরসভা। শুধু অভিযোগ জানানোই নয়, পুরসভার অধিকাংশ গুরুত্বপূর্ণ কাজ সারা যাবে ওই অ্যাপেরই সাহায্যে। জানা যাবে পুরসভার গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন ঘোষণাও। রবিবার বিকেলে ওই অ্যাপের উদ্বোধন করেন এলাকার বিধায়ক তথা তথ্য-প্রযুক্তিমন্ত্রী ব্রাত্য বসু। 

একই সঙ্গে ওই পুর এলাকার স্কুলগুলির সামনে বিশুদ্ধ পানীয় জলের কিয়স্কের সূচনাও হল এ দিন। মোট ২০০টি স্কুলের সামনে ‘আরও’ (রিভার্স অসমোশিস) পদ্ধতিতে পরিশোধিত জলের কিয়স্ক বসানো হবে। 

এই দু’টি পরিষেবা সূচনা দিয়েই এ দিন ব্রাত্য ‘বাংলার গর্ব মমতা’ কর্মসূচিরও সূচনা করেন। ব্রাত্য বলেন, ‘‘আমি দীর্ঘদিন ধরেই জনতার দরবার করি। এই কর্মসূচির মাধ্যমে জনসংযোগ আরও নিয়মিত ও নিবিড় হবে।’’

দমদম পুরসভার একটি অ্যাপ যদিও আগে থেকেই ছিল। কিন্তু সেটিতে কিছু তথ্য জানা গেলেও, নাগরিকদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগের সুযোগ ছিল না। নতুন অ্যাপে যেমন অভিযোগ জানানো যাবে, তেমনই সরাসরি কর বা অন্য বিলও মেটানো যাবে মোবাইল থেকেই। অভিযোগের সঙ্গে চাইলে নাগরিকেরা ছবিও জুড়ে দিতে পারেন। আবার কেউ চাইলে যে কোনও বিষয়ে পুর কর্তৃপক্ষকে কোনও প্রস্তাবও দিতে পারেন।

স্কুলের সামনে জলের যে সব কিয়স্ক বসানো হচ্ছে, সেগুলির এক একটির জল ধারণ ক্ষমতা ৩০০ লিটার। পুরসভার জলই ব্যবহার করা হবে ওই কিয়স্কে। এক একটি কিয়স্ক তৈরি করতে প্রায় দু’ লক্ষ টাকা খরচ পড়ছে। শুধু স্কুল-পড়ুয়ারাই নয়, পথচলতি মানুষও নিখরচায় ওই কিয়স্ক থেকে জল নিতে পারবেন। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন