বারো হাজার পড়ুয়া আর স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সই মিলিয়ে একটা ছোট পুস্তিকা। উপরে তাঁর ছবি। সেটা এঁকেছে স্কুলেরই এক পড়ুয়া। আজ, বুধবার নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে এমনই শুভেচ্ছা-বার্তা পাঠাবেন সাউথ পয়েন্ট স্কুল কর্তৃপক্ষ।

প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয় আবার তৈরি করেছে বিশেষ ধরনের নকশা করা একটি শুভেচ্ছাপত্র। সেটি তৈরি করা হয়েছে ‘স্ক্রোল’-এর আকারে। তা তুলে দেওয়া হবে নোবেলজয়ীর হাতে। তবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দু’ভাবেই নিজেদের তৈরি করে রেখেছেন। যদি কিছু সময় বার করে অভিজিৎবাবু বিশ্ববিদ্যালয়ে আসতে পারেন, তার জন্য তাঁরা প্রস্তুত। আর না এলে শুভেচ্ছাপত্র নিয়ে বালিগঞ্জ সার্কুলার রোডে প্রাক্তনী ওই ছাত্রের কাছে পৌঁছে যাবেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

অভিজিৎবাবুর শৈশব ও কৈশোর কেটেছে কলকাতায়। পড়াশোনা করেছেন সাউথ পয়েন্ট স্কুল এবং প্রেসিডেন্সি কলেজে। সেই ছাত্রেরই অর্থনীতিতে নোবেল জয়ের খবর জানার পর থেকে আনন্দে ভেসে গিয়েছে তাঁর স্কুল এবং কলেজ। অভিজিৎবাবুর সেই কলেজ এখন বিশ্ববিদ্যালয়। দু’জায়গাতেই বর্তমান পড়ুয়ারা নোবেল জয়ের খবর পাওয়ার পরে নিজেদের মতো করে সেই মুহূর্ত উপভোগ করেছে। অভিজিৎবাবুর বন্ধু-সহপাঠীরা তাঁদের বক্তব্য জানিয়েছেন। জানিয়েছেন, পড়ুয়া, বন্ধু এবং সহপাঠী হিসেবে তিনি কেমন ছিলেন সেই সব দিনগুলির কথাও। এ বার নোবেলজয়ী পা রাখছেন নিজের শহরে। আশা ছিল, হয়তো এক বার কিছু ক্ষণের জন্য হলেও প্রাক্তন পড়ুয়া হিসেবে তিনি স্কুল এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে আসবেন। কিন্তু ব্যস্ততা আর সময়ের অভাবে মাত্র এক দিনের জন্যই কলকাতায় আসছেন অভিজিৎবাবু। ফলে শুধুমাত্র তিনি পরিবারের সঙ্গে, বিশেষ করে মা নির্মলা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই সময় কাটাতে আসছেন। তা জেনে গিয়েছে তাঁর স্কুল এবং বিশ্ববিদ্যালয়। তাই কাছে না পেলেও নিজেদের স্কুল এবং পড়ুয়াদের শুভেচ্ছাবার্তা অভিজিৎবাবুর বাড়ি গিয়ে দিয়ে আসতে চান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

সাউথ পয়েন্টের তরফে কৃষ্ণ দামানি জানিয়েছেন, এ বারের সফরে অভিজিৎবাবু যে স্কুলে আসার সময় পাবেন না তা জানেন তাঁরা। কিন্তু এতে তাঁদের পড়ুয়া বা শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বিন্দুমাত্র আক্ষেপ নেই। নোবেল জয়ের এক সপ্তাহের মধ্যেই কলকাতায় আসছেন অভিজিৎবাবু। তাঁর কাছে শুভেচ্ছাপত্র পৌঁছে দিতে পারাটাই সবচেয়ে আনন্দের। মঙ্গলবার সাউথ পয়েন্ট স্কুলে গিয়ে দেখা গেল, মূল গেটের ভিতরে রয়েছে একটি স্ট্যান্ড। তাতে অভিজিৎবাবুর ছবি দিয়ে পোস্টার রাখা। প্রাক্তন এই ছাত্রের নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পরেই শুভেচ্ছা জানিয়ে ওই পোস্টার রাখা হয়েছে।

আর প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে? সেখানে অর্থনীতি বিভাগের করিডরে নোটিস বোর্ড ভর্তি হয়ে গিয়েছে নানা সময়ে অভিজিৎবাবুর বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার ছবিতে। আর এক দিকের নোটিস বোর্ডে তাঁর নোবেল পাওয়ার পরে বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবরের কাটিং। অর্থনীতির বর্তমান বিভাগীয় প্রধান মৌসুমী দত্ত বলেন, ‘‘এ বার তো কম সময়ের জন্য আসছেন উনি। যা জানতে পেরেছি, উনি পরিবারের সঙ্গেই কাটাবেন। তাই এখানে আসার সময় পাবেন না। পরের বার আশা করি উনি বিশ্ববিদ্যালয়ে এলে ডিপার্টমেন্টেও আসবেন।’’