ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর জোড়া সুড়ঙ্গ এসপ্লানেড স্টেশন অতিক্রম করায় আজ, বৃহস্পতিবার থেকে মেট্রোর গতি বাড়ছে। তবে পর্যাপ্ত রেকের অভাবে মেট্রো কর্তৃপক্ষ এখনই ট্রেনের সংখ্যা বাড়াচ্ছেন না। আপাতত তাই দিনে ৩০০টি নয়, ২৮৪টি মেট্রোই চলবে।

সূত্রের খবর, বর্তমান উত্তর-দক্ষিণ মেট্রোর লাইনের নীচে গত জানুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর সুড়ঙ্গ খোঁড়ার কাজ শুরু হয়েছিল। শিয়ালদহমুখী জোড়া সুড়ঙ্গ খোঁড়ার কাজ চলায় এসপ্লানেডে মেট্রোর গতি ঘণ্টায় ১০ কিলোমিটারে বেঁধে দেওয়া হয়। এর ফলে গত প্রায় দু’মাস ধরে ট্রেন এসপ্লানেড স্টেশনে ঢোকা এবং বেরনোর সময়ে গতি সংক্রান্ত ওই বিধিনিষেধ মেনে চলেছে। এসপ্লানেডে ট্রেনের গতি কমে যাওয়ায় মেট্রোর সময়ানুবর্তিতাও নিয়মিত ধাক্কা খাচ্ছিল বলে অভিযোগ।

নোয়াপাড়া থেকে কবি সুভাষ পর্যন্ত একটি ট্রেনের গোটা পথে যাত্রা সম্পূর্ণ করতে ৪৯ মিনিট সময় লাগে। কর্তৃপক্ষের দাবি, মেট্রোর গতি এসপ্লানেডে ধীর হওয়ার ফলে যাত্রা সম্পূর্ণ করতে দু’মিনিট করে অতিরিক্ত খরচ হচ্ছিল। সারাদিনে ওই ক্ষতির সবটা পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছিল না বলে মেট্রো সূত্রের খবর। ফলে ট্রেনের সময়ানুবর্তিতা ধাক্কা খাচ্ছিল। এ দিকে, বিভিন্ন স্টেশনে ট্রেন দেরিতে চলায় যাত্রীদের ভিড় বাড়ছিল। এর কারণে সমস্যা আরও জটিল হচ্ছিল। রাতের দিকে প্রায়ই ট্রেন কমিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করছিলেন যাত্রীরা। 

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

মেট্রো সূত্রের খবর, এসপ্লানেডে গতি সংক্রান্ত বিধিনিষেধ উঠে যাওয়ায় সময়ানুবর্তিতার কিছুটা উন্নতি হতে পারে। তবে হাতে যথেষ্ট সংখ্যক চালু রেকের অভাব থাকায় এখনই ট্রেনের সংখ্যা বাড়িয়ে দিনে ৩০০তে ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন না কর্তৃপক্ষ। কলকাতা মেট্রোয় এখন ১৩টি এসি এবং ১৪টি নন এসি রেক রয়েছে। রক্ষণাবেক্ষণ সংক্রান্ত কারণে প্রায় দিনই মেট্রো পরিষেবা চালু রাখতে গড়ে ১৯-২০টির বেশি রেক পাওয়া যায় না বলে দাবি কর্তৃপক্ষের। ফলে যথেষ্ট সংখ্যক কার্যকরী রেক হাতে না পাওয়া পর্যন্ত ট্রেনের সংখ্যা বাড়াতে গেলে বিপত্তির আশঙ্কা করছেন মেট্রো কর্তৃপক্ষ।

মেট্রো সূত্রের খবর, চেন্নাইয়ের ইন্টিগ্রাল কোচ ফ্যাক্টরি (আইসিএফ) থেকে আসা পাঁচটি রেক ধাপে ধাপে নামতে চলেছে। চলতি মাসেই প্রথম রেকটি চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে। মেট্রো রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রাণী বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, গত শনিবার ওই রেকটির চূড়ান্ত পর্বে একটি পরীক্ষা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের ইলেকট্রিক্যাল ইনস্পেক্টরের উপস্থিতিতে ওই পরীক্ষার ফল ইতিবাচক। 

মেট্রোর এক কর্তা বলেন, ‘‘এ ছাড়া চিন থেকে আনা আধুনিক রেকটিও তিন মাসের মধ্যেই চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে। এ মাসেই আইসিএফ থেকে আসা রেকটিকে যাত্রী পরিবহণে ব্যবহার করা হবে। ওই রেকগুলি ব্যবহার করা গেলে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হবে বলে আশা করছি।’’