পথকুকুরদের আবাসনে তুলে নিয়ে এসে আশ্রয় দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু আবাসিকদের একটা অংশ তার প্রতিবাদ করেন। এর পরেই ফেসবুক লাইভ করে গোটা বিষয়টি নিয়ে সরব হন অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। শেষমেশ তিনি তাঁর বেহালা সোদপুরের ওই আবাসন চত্বরেই ওই দুই পথকুকুর ও তাদের ছানাদের রেখে দিয়েছেন।

শ্রীলেখা জানাচ্ছেন, কিছু দিন আগে তাঁর মেয়ে ঐশী তাঁকে ওই পথকুকুরদের দুরবস্থার কথা বলেন। তার আগে তিনটি কুকুরছানা গাড়িচাপা পড়ে মারা যায়। এর পর শ্রীলেখা বাকি দুই মা এবং তাদের ছানাদের নিজেদের আবাসন চত্বরে নিয়ে আসেন। কিন্তু, তাতে বিপত্তি বাধে। আবাসনের অন্য আবাসিকরা প্রশ্ন তোলেন, কেন তিনি এ ভাবে পথকুকুরদের আবাসনের মধ্যেই আশ্রয় দিচ্ছেন? যদিও সে সবকে গুরুত্ব দিতে নারাজ শ্রীলেখা। তাঁর কথায়: “জানি অনেক পয়সা দিয়ে এখানে সকলে ফ্ল্যাট কিনেছেন। ওঁরা তাই মেনে নিতে পারছেন না, পথকুকুর কেন এখানে থাকবে। মানুষ কাকে বলে? যাঁরা অন্যের প্রয়োজনে পাশে থাকে। আমার শিক্ষা এটাই। ছানাগুলো মারা যাচ্ছিল। রুগ্ন হয়ে পড়ছে ওরা। কারও তো কোনও ক্ষতি করছে না! আমি তাই আশ্রয় দিয়েছি।”

ওই কুকুরছানাদের একটিকে শ্রীলেখা দত্তক নেবেন বলে জানিয়েছেন। অন্যরাও যাতে তাদের দত্তক নিতে আগ্রহী হন, সে বিষয়ে সোশাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়েছেন অভিনেত্রী। সোমবার তিনি বলেন, “ওরা এখন অনেকটাই সুস্থ। ওদের মধ্যে একটাকে আমি দত্তক নেব। আমার বন্ধুরাও কয়েকটা কুকুরছানা নেবে বলে জানিয়েছে। ওরা তো এখানেই থাকত। আমারই বরং এখানে আবাসন করে ওদের ঘড় কেড়ে নিয়েছি।”

আরও পড়ুন-চিৎপুরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ল্যাম্পপোস্টে ধাক্কা স্কুলবাসের, জখম বেশ কয়েক জন পড়ুয়া

আরও পড়ুন-‘সর্বনাশা পদক্ষেপ’, সেনার সঙ্গে হাত মেলানো নিয়ে দলকে সতর্কবার্তা কংগ্রেস নেতা সঞ্জয় নিরুপমের

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তাঁর আবাসনের এক বাসিন্দা এ দিন বলেন, ‘‘ওই কুকুরদের টিকাকরণ করা নেই। যদি আবাসনের কাউকে কামড়ে দেয়? সে দায়িত্ব কে নেবে?’’ শ্রীলেখা জানাচ্ছেন, এ বিষয়ে তিনি আগেই সোশাল মাধ্যমে বলেছেন। তাঁর কথায়, ‘‘হ্যাঁ দায়িত্ব নেব। ওই কুকুরদের টীকাকরণের দায়িত্বও আমার। তবে ওরা আপাতত এখানেই থাকবে।’’ শ্রীলেখার আরও দাবি, বিষয়টি তিনি মানেকা গাঁধী ফাউন্ডেশনকে ই-মেল মারফত জানিয়েছেন।