• দেবাশিস ঘড়াই
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কাঠামো তুলতে রাত জাগেন আক্রামুলেরা

Immersion
তদারকি: বাজেকদমতলা ঘাটে কাঠামো তোলার কাজের দেখভালে ব্যস্ত কুতুবউদ্দিন এবং আক্রামুল। নিজস্ব চিত্র

শুক্রবার রাতে নিমতলা ঘাটে তখন চাপ কম। জাজেস ঘাটেও একই অবস্থা। যত চাপ বাজেকদমতলা ঘাটে। প্রতিমা ভাসানের এতটা চাপ সামলানো যাবে কি না, তখনও ঠিক বুঝে উঠতে পারছিলেন না কুতুবউদ্দিন শেখ ও আক্রামুল হক। দু’জন মিলে ভাবতে বসেছিলেন নিমতলা থেকে লোক ডেকে আনবেন কি না। এমনিতে গঙ্গার জোয়ার-ভাটা সবই তাঁদের হাতের তালুর মতো চেনা। প্রতিমা জলে পড়লে কী-কী করতে হবে, অধস্তনদের পইপই করে বুঝিয়ে দিয়েছেন। কোথায় কত জন থাকবে, তারও ছক আগে থেকেই কষা রয়েছে। 

তবু যত ক্ষণ না সব ঠিকঠাক মিটে যায়, তত ক্ষণ শান্তি পান না কুতুবউদ্দিন-আক্রামুল। কুতুবউদ্দিন বলছেন, ‘‘দিনের শেষে মায়ের কাঠামো ঠিকঠাক উঠল কি না, সেটা তো আমরাই দেখি। ফলে যত ক্ষণ না সব ঠিকঠাক হয়, শান্তি পাই না!’’

কলকাতা বন্দর কর্তৃপক্ষের তরফে গঙ্গায় ভাসানের সময়ে যে ঠিকাদার সংস্থা নিয়োগ করা হয়, সেই সংস্থারই কর্মী কুতুবউদ্দিন-আক্রামুলেরা। গত দশ বছর ধরে তাঁরা এই কাজ করে আসছেন। ওই সংস্থার তরফে হিদাইতুল্লা শেখ বললেন, ‘‘ভাসানে বন্দরের প্রতিনিধি বলতে আমাদের সংস্থাই। ২০০৯ সাল থেকে এই কাজ করে আসছে আমাদের সংস্থা। আর সংস্থার হয়ে ভাসান-পর্ব পুরোটাই সামলান আক্রামুল-কুতুবউদ্দিনই।’’

তাই দুর্গাপ্রতিমা গঙ্গায় পড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাতে কাঠামো তোলা হয়, সে ব্যাপারেও সজাগ দৃষ্টি তাঁদের। আক্রামুল বলছেন, ‘‘গঙ্গা দূষণের ব্যাপারটাও তো মাথায় রাখতে হয়। তাই কাঠামো পড়লেই ক্রেন বা কর্মী দিয়ে সেগুলি তুলে নেওয়া হয়।’’ কাঠামো তুলে পাড়ে রাখার পরে কলকাতা পুরসভার লরি এসে তা নিয়ে চলে যায়। ঘড়ি ধরে পুরো কাজটা করে যেতে হয় সমানে।

তাই ভাসান-পর্ব না মেটা পর্যন্ত গঙ্গার পাড়েই থাকেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার নুরপুর গ্রামের বাসিন্দা কুতুবউদ্দিন-আক্রামুল। খাওয়া-দাওয়া, থাকা— সবই চলে ক্রেনের পাশে লঞ্চের উপরে। কুতুবউদ্দিন-আক্রামুলের কোনও বিশ্রাম হয় না এ ক’দিন। অন্য কর্মীরা তবু বিশ্রাম পান। কারণ, তাঁদের শিফ‌্‌ট থাকে। কুতুবউদ্দিন বলছেন, ‘‘আসলে মূল দায়িত্বটা আমাদের উপরেই থাকে তো। তাই এ ক’দিন একটু চাপের মধ্যেই থাকতে হয়।’’ গত কয়েক দিন কখনও বিকেল থেকে ভোররাত পর্যন্ত, কখনও আবার রাত থেকে ভোর পর্যন্ত চলেছে ভাসান-পর্ব। অতন্দ্র প্রহরীর মতো বসে থেকেছেন ওই দু’জন।

পুজোয় অবশ্য পরিবারের সঙ্গে ঠাকুর দেখতে বেরিয়েছিলেন তাঁরা। প্রতি বছরের মতোই। কুতুবউদ্দিনদের গ্রামে দুর্গাপুজো হয় না। তবে কালীপুজো হয়। হিন্দু-মুসলিম সকলে মিলে সেই পুজোয় অংশগ্রহণ করেন বলে জানালেন কুতুবউদ্দিন। তাঁর কথায়, ‘‘হিন্দু-মুসলিম আলাদা বলে তো কিছু নেই। পুজো এলে আমাদেরও আনন্দ হয়। কালীপুজো তো সকলে একসঙ্গেই করি।’’

কিন্তু তবু কারা যেন হিন্দু-মুসলিম নিয়ে তরজা চালায় অনবরত। তার কারণ কুতুবউদ্দিনেরা কিছুতেই বুঝে উঠতে পারেন না! ভোরের আলোয় যখন প্রতিমার শেষ কাঠামোটা জল থেকে ওঠে, তখন শ্রান্ত গঙ্গার পাড়ের মতো বিষণ্ণ হয়ে পড়েন কুতুবউদ্দিন-আক্রামুলও। গত ক’দিনের ক্লান্তির সঙ্গে বিষাদের ছাপ মিলেমিশে যায় তাঁদের চোখেমুখে।

মন খারাপ হয় বুঝি?

কুতুবউদ্দিন-আক্রামুল সমস্বরে বলেন, ‘‘তা মন খারাপ হবে না? আবার তো সেই এক বছরের অপেক্ষা!’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন