• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ছুটির শহরেও যানজট, সৌজন্যে ধর্ম-মিছিল

Rally
ভোগান্তি: রামনবমীর মিছিলে থমকে পথ। রবিবার, বাঘা যতীন এলাকায়। ছবি: শশাঙ্ক মণ্ডল

Advertisement

ছুটির দিনটুকু শহরে নির্ঝঞ্ঝাট চলাফেরাই দস্তুর। কিন্তু রবিবার কলকাতার রাজপথে সেই ছবিটা বদলে গিয়েছিল। দুপুর থেকে সন্ধ্যা, দফায় দফায় যানজট হল উত্তর ও মধ্য এবং দক্ষিণ কলকাতার একাংশে। সৌজন্য রামনবমীর মিছিল। শুধুূ মিছিলই নয়, রাস্তায় দাঁড়িয়ে চিৎকার, হুল্লোড়ের বিশৃঙ্খলাও ছিল যথেষ্ট।

লালবাজার সূত্রের খবর, বেলা সওয়া এগারোটা নাগাদ এপিসি রোডে রামনবমীর মিছিলে ব্যাহত হয় শিয়ালদহমুখী যান চলাচল। দুপুর আড়াইটে নাগাদ আর একটি মিছিলে আটকে যায় কলাকার স্ট্রিট ও কালীকৃষ্ণ ঠাকুর স্ট্রিট। পৌনে তিনটে নাগাদ যানজট ছড়ায় যদুলাল মল্লিক রোড, মালাপাড়া, নিমতলায়। কিছু ক্ষণের মধ্যে মহাত্মা গাঁধী রোড ও চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউয়ের মধ্যে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়। বিকেল পৌনে চারটে নাগাদ আমহার্স্ট স্ট্রিট এবং বিবেকানন্দ রোডেও যানবাহনের গতি থমকে যায়।

পুলিশ সূত্রের খবর, চারটে নাগাদ কলাকার স্ট্রিট, মালাপাড়া, কালীকৃষ্ণ ঠাকুর স্ট্রিটের অবস্থা স্বাভাবিক হতে শুরু করে। কিন্তু তার আধ ঘণ্টার মধ্যে ফের আর একটি মিছিলে গ্যালিফ স্ট্রিট, কে ভি ভি অ্যাভিনিউ, শ্যামবাজার এলাকায় যানজট হয়। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ সিঁথি এলাকায় ফের একটি মিছিল বেরনোর ফলে বি টি রোডে যান চলাচল ব্যাহত হয়। রাতে গরচা রোডেও পথ আটকে মিছিল ও হুল্লোড় চলেছে।

বিকেলে গাড়ি নিয়ে যানজটে আটকে পড়া এক ব্যক্তির মন্তব্য, ‘‘রবিবারেও নিস্তার নেই! এ ধরনের মিছিল তো এত দিন দেখিনি!’’ ভরদুপুরে যানজটে আটকে পড়ে এক বাস কন্ডাক্টর বলছিলেন, ‘‘এমনিতেই রবিবারে তেমন যাত্রী হয় না। তার উপরে যদি রাস্তায় আটকে থাকতে হয়!’’ রাতে গরচা রোডে আটকে পড়া এক মহিলা বলছেন, ‘‘রাস্তার উপরে মাথায় ফেট্টি বেঁধে হুল্লোড় চলছিল, আবির উড়ছিল। গাড়িঘোড়়া কার্যত স্তব্ধ করে, লোকজনকে অসুবিধায় ফেলে এ কোন উল্লাস?’’

পুলিশ সূত্রের দাবি, যানজটে এড়াতে অন্য রাস্তা দিয়ে গাড়ি ঘুরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ‘‘সপ্তাহের কাজের দিনে এই মিছিল হলে ভোগান্তি আরও বাড়ত,’’ মন্তব্য এক পুলিশ কর্তার।

রামনবমী উপলক্ষে সল্টলেকের ১৩ নম্বর ট্যাঙ্ক থেকে পিএনবি মোড় পর্যন্ত বিজেপি-র মিছিল ছিল। শ্রাবণী আবাসনের কাছে মিছিলের অনুমতি দেখতে চায় বিধাননগর উত্তর থানা। তখন অনুমতিপত্র দেখাতে পারেননি উদ্যোক্তারা। পরে বিধাননগর দক্ষিণ থানা থেকে অনুমতি নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করলে মিছিল যেতে দেওয়া হয়।

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন