• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

অবৈধ পার্কিং, বিকল্প রাস্তাও অগম্য

Illegal Parking
বেআইনি: ক্যানাল ওয়েস্ট রোড (বাঁদিকে) এবং মন্মথ গাঙ্গুলি রোডের (ডান দিকে) পাশে দাঁড় করানো রয়েছে বাস, লরি ও পণ্যবাহী গাড়ি। ছবি: দেবস্মিতা ভট্টাচার্য

Advertisement

একেই সঙ্কীর্ণ রাস্তা। তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে অবৈধ পার্কিং। সেই কারণে টালা সেতুর পরিবর্তে যে বিকল্প কয়েকটি পথে গাড়ি চলাচল করছে, সেখানেও লেগে রয়েছে যানজট। কলকাতা পুলিশের ‘নো পার্কিং জ়োন’ হওয়া সত্ত্বেও সে সব রাস্তা জুড়ে দাঁড়িয়ে থাকে গাড়ি!

মাস তিনেক আগে টালা সেতুর উপরে ভারী যান চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। সেই নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ায় পার্শ্ববর্তী খালপাড়ের তিনটি রাস্তায় গাড়ি চলাচল বেড়ে গিয়েছে। টালা সেতুর বদলে বেশির ভাগ গাড়িই এখন মন্মথ গাঙ্গুলি রোড, ক্যানাল ইস্ট রোড এবং ক্যানাল ওয়েস্ট রোড দিয়ে চলাচল করছে। ওই রাস্তা তিনটি এমনিতেই সঙ্কীর্ণ। তার উপরে দু’পাশে বেশির ভাগ সময়ে বেআইনি ভাবে গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকায় তীব্র যানজটের মুখে পড়ছেন যাত্রীরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে টালা সেতুর কাছে গিয়ে দেখা গেল, টি কে মুখার্জি রোড দিয়ে আসা একটি লরি বাঁ দিকে ঘুরে টালা সেতুতে উঠতে গেলে কর্তব্যরত ট্র্যাফিক সার্জেন্ট সেটিকে সোজা মন্মথ গাঙ্গুলি রোড দিয়ে পাঠালেন। সরু রাস্তায় দু’পাশে গাড়ি দাঁড় করানো থাকায় ওই লরিটি পাশ কাটিয়ে যেতেই পারছিল না। শেষমেশ এক ট্র্যাফিক পুলিশ ছুটে এসে গাড়ি সরিয়ে লরিটিকে যাওয়ার জায়গা করে দিলেন। এ দিন মন্মথ গাঙ্গুলি রোডে গিয়েও দেখা গেল একই ছবি। রাস্তা এমনিতেই সঙ্কীর্ণ। তার উপরে দু’দিকে দাঁড়িয়ে গাড়ি। ফলে যানজটে নাজেহাল অবস্থা সকলের। এ দিন দুপুরে আর জি কর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রোগী নিয়ে যাওয়ার সময়ে একটি অ্যাম্বুল্যান্স বেশ কিছু ক্ষণ আটকে থাকে মন্মথ গাঙ্গুলি রোডের যানজটে। অ্যাম্বুল্যান্সের চালক মানস বড়ুয়া বললেন, ‘‘বাগবাজার থেকে এটুকু দূরত্ব আসতেই নাকানিচোবানি খাওয়ার জোগাড়।’’ স্থানীয় বাসিন্দাদের বক্তব্য, এলাকার রাস্তাগুলিকে টালা সেতুর বিকল্প পথ হিসেবে ব্যবহার করতে হলে প্রশাসনকে অবৈধ পার্কিং বন্ধ করতে হবে। না-হলে টালা সেতু ভাঙার কাজ শুরু হলে দুর্ভোগ আরও বাড়বে। 

আরও পড়ুন: পাঁচ দিন বাবার মৃতদেহ আগলে ছেলে, বেহালা মনে করাচ্ছে রবিনসন স্ট্রিট

এ দিন মন্মথ গাঙ্গুলি রোডের পাশাপাশি ক্যানাল ইস্ট বা ক্যানাল ওয়েস্ট রোডে গিয়েও দেখা গেল একই অবস্থা। রাস্তার সংস্কার করা হলেও অবৈধ পার্কিং অব্যাহত। কোথাও আবার রাস্তার পাশেই রয়েছে ঝুপড়ি।

খালপাড় লাগোয়া রাস্তাগুলি থেকে অবৈধ পার্কিং সরানো হচ্ছে না কেন? পুলিশের দাবি, ওই সব রাস্তায় আগের তুলনায় অবৈধ পার্কিং কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। ট্র্যাফিক পুলিশের এক কর্তা বলেন, ‘‘খালপাড়ের রাস্তাগুলি অনেকটাই দখলমুক্ত হয়েছে। সেতু ভাঙা শুরু হলে রাস্তার দু’পাশ থেকে গাড়ি পার্কিং পুরোপুরি সরিয়ে ফেলা হবে।’’

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন