বিদেশে এক-একটি শিশুকে পাচার করে তিরিশ লক্ষ টাকা আয় করত পাচারকারীরা!

কলকাতাকে কেন্দ্র করে গজিয়ে ওঠা এক শিশু পাচার-চক্রের মূল পাণ্ডাকে গ্রেফতারের পরে এমনই তথ্য জানতে পেরেছে পুলিশ। পুলিশ সূত্রের খবর, গত দু’বছর ধরে গুজরাত থেকে কলকাতা হয়ে ১৩ জন নাবালিকাকে আমেরিকার বিভিন্ন শহরে পাচার করা হয়েছিল। ১৫ বছরের কম বয়সী নাবালিকাদের পাসপোর্ট তৈরির কাজ হত হাওড়ায়। তাদের মূলত গুজরাত থেকে নিয়ে আসা হত। কলকাতাকে ব্যবহার করা হত ‘ট্রানজিট’ হিসেবে। পাচার-চক্রের পাঁচ জনকে আগেই ধরেছে পুলিশ। তারা এখন জেল হেফাজতে। শনিবার রাতে তাদের পাণ্ডা, গুজরাতের বাসিন্দা ময়ূর ব্যাসকে গুজরাতেই গ্রেফতার করেন কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দারা। নাসির নামে এই চক্রের এক সদস্যকে আগেই ধরেছিল পুলিশ। সে কলকাতার বাসিন্দা। নাসিরের স্ত্রী এক সময়ে মার্কিন কনসুলেটের ভিসা বিভাগে কাজ করতেন। তাঁকেও জিজ্ঞাসাবাদ করবেন গোয়েন্দারা। গোয়েন্দা-প্রধান প্রবীণ ত্রিপাঠী বলেন, ‘‘ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এই চক্রে আরও কেউ যুক্ত রয়েছে কি না, খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’’