স্বামীর দেহ উদ্ধারের পরে এক ব্যক্তির নামে খুনের অভিযোগ করে স্ত্রী। অভিযুক্তকে ধরেও রহস্য উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। পরে মোবাইল ও কিছু সূত্র ধরে স্বামীকে খুনের অভিযোগে শুক্রবার গ্রেফতার হল স্ত্রী। ধরা পড়েছে তার প্রেমিকও। ধৃতদের নাম সাবিনা বিবি এবং সুজাউদ্দিন মণ্ডল ওরফে সুজা। পুলিশের দাবি, জেরায় ধৃতেরা স্বীকার করেছে, স্বামীর থেকে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে খুনের জন্য প্রেমিককে দিয়েছিল স্ত্রী-ই। 

পুলিশ জানিয়েছে, ৪ জুলাই দেগঙ্গা থানার বেড়াচাঁপা-পৃথীবা রোডের পাশে একটি জলাশয়ে ফাঁস দেওয়া অবস্থায় এক ব্যক্তির দেহ মেলে। তদন্তকারীরা জানান, মৃতের নাম মোক্কাদুস মোল্লা (৪০)। পেশায় মাটি ব্যবসায়ী ওই ব্যক্তি হাবড়া থানা এলাকার বাসিন্দা। তাঁর স্ত্রী সাবিনা বিবি পুলিশকে জানায়, সাহেব আলি মোল্লার থেকে টাকা পেতেন মোক্কাদুস, তিনিই খুন করেছেন। সাহেবকে গ্রেফতারের পরেও জেরা করে খুনের তথ্য মেলে না। পুলিশ সাবিনার মোবাইল ঘেঁটে জানতে পারে, খুনের রাতে সুজাকে সাত বার ফোন করে অনেক ক্ষণ কথা বলে সাবিনা। দিন সাতেক আগে সুজাকে জেরা করে সাবিনাকে ধরা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, ব্যবসা সূত্রেই মোক্কাদুসের সঙ্গে বন্ধুত্ব সুজার। ধীরে ধীরে সাবিনার সঙ্গে সম্পর্ক হয়। এর পরেই স্বামীকে খুনের চক্রান্ত করে সাবিনা। পুলিশের দাবি, জেরায় দু’জনেই জানায়, ৩ জুলাই সন্ধ্যায় মোটরসাইকেল কেনার নামে মোক্কাদুসকে বাইকে তোলে সুজা। দুই যুবকের মাঝে বসেন মোক্কাদুস। অন্য বাইকে পিছু নেয় সুজা। পিছনে বসা যুবক মোক্কাদুসের গলায় গামছার ফাঁস দিয়ে মেরে জলাশয়ে ফেলে। কাজ হয়েছে কি না জানতে সুজাকে রাতে ফোন করে সাবিনা।