গলায় ফাঁস দেওয়া ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হল এক ব্যক্তির। মৃতের নাম অরবিন্দ জানা (৫৯)। সোমবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে ঝড়খালি কোস্টাল থানার অন্তর্গত নফরগঞ্জ পঞ্চায়েতের বিরিঞ্চিবাড়ি এলাকায়। মৃতের পরিবারের দাবি, পাওনাদারের চাপ সহ্য করতে না পেরে আত্মঘাতী হয়েছেন অরবিন্দ। তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। দেহ পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বছর কয়েক আগে স্থানীয় কয়েকটি অর্থলগ্নি সংস্থার সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে বাজারে ধারদেনা হয়ে গিয়েছিল অরবিন্দর। পরে জমিজমা বিক্রি করে বেশির ভাগ টাকা শোধও করেছিলেন। কিন্তু বিপত্তি বাধে কয়েক মাস আগে। স্ত্রী মিলু অসুস্থ হয়ে পড়েন। চিকিৎসার জন্যও এলাকার চেনা-পরিচিত লোকজনের কাছে ফের কিছু টাকা ধার হয়ে যায় তাঁর।

অর্থলগ্নি সংস্থার কাজ চলে যাওয়ার পর থেকে তেমন কোনও কাজকর্মও করতেন না অরবিন্দ। বড় ছেলে গৌতম ভিনরাজ্যে কাজ করেন। তাঁর রোজগারের টাকাতেই কোনও মতে চলত সংসার।

অরবিন্দর ছোট ছেলে উত্তম বলেন, “মায়ের চিকিৎসার জন্য বাবা প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা ধার করেছিলেন। কিছু টাকা শোধ করা হয়েছিল। বাকিটাও ধীরে ধীরে শোধ শোধ করার কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু পাওনাদারেরা বাড়ি বয়ে এসে বাবাকে অপমান করত। পথেঘাটে হুমকি দিত। বাবা সব সময়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত থাকতেন।’’

মৃতের পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার রাতে খাওয়া-দাওয়া করে নিজের ঘরে ঘুমোতে যান অরবিন্দ। সোমবার সকালে পরিবারের লোকজন দেখেন, ঘরের চালের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলছে দেহ। বাসন্তী ব্লক গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।