বছর তিনেক আগে অশোকনগর-কল্যাণগড় পুরসভা থেকে বার্ধক্য ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা এবং মিড ডে মিলের প্রায় তিন কোটি টাকা তছরুপের অভিযোগ উঠেছিল। গরিব মানুষের ওই টাকা পুরসভায় ফিরিয়ে আনার দাবিতে মঙ্গলবার পুরপ্রধান প্রবোধ সরকারের কাছে স্মারকলিপি দিল সিপিএম। 

সার্বিক পুর পরিষেবা উন্নতি ও কাটমানি ফেরতের দাবিও তোলা হয়েছে। এ দিন সকালে সিপিএম নেতা-কর্মী-সমর্থকেরা মিছিল করে পুরসভায় আসেন। পুরপ্রধানের ঘরে ঢুকে তাঁরা স্লোগান দেন। পুরসভার বিরোধী দলনেতা সিপিএমের চিত্তরঞ্জন বিশ্বাস বলেন,  ‘‘গরিব মানুষের তছরুপ হওয়া প্রায় তিন কোটি টাকা ফেরানোর দাবিতে এর আগেও আমরা পুরসভায় স্মারকলিপি দিয়েছি। পুরসভার বোর্ড মিটিংয়েও আমরা দাবি করেছি। যদিও ওই টাকা আজও ফেরানো হয়নি। দ্রুত টাকা ফেরানোর ব্যবস্থা করা না হলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামব।’’    

আগের তৃণমূল পরিচালিত  পুরবোর্ডের আমলে তছরুপের অভিযোগ ওঠে। দু’টি সংস্থাকে চেক ও নগদে টাকা দেওয়া হয়েছিল। যদিও ওই দু’টি সংস্থার সঙ্গে পুরসভার কোনও বিষয়ে আর্থিক লেনদেন ছিল না বলে পুর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

বর্তমান তৃণমূল পরিচালিত পুরবোর্ডের প্রধান প্রবোধ ওই টাকা তছরুপের ঘটনায় ২০১৬ সালে অশোকনগর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। প্রবোধ বলেন, ‘‘তদন্তে নেমে পুলিশ দু’জন পুরকর্মী-সহ সাতজনকে গ্রেফতার করেছিল। ওই টাকা পুরসভার তহবিলে ফিরিয়ে আনতে চলতি বছরেই আমরা বারাসত জেলা আদালতে মামলা করেছি। টাকা ফেরনোর জন্য সব রকমের চেষ্টা করা হচ্ছে।’’

অশোকনগরের প্রাক্তন সিপিএম বিধায়ক সত্যসেবী কর অভিযোগ করে বলেন, ‘‘পুর পরিষেবা বেহাল। শংসাপত্র দিতেও এখানে কাটমানি নেওয়া হচ্ছে। তোলাবাজি চলছে।’’ প্রবোধ বলেন, ‘‘কাটমানি, তোলাবাজি নিয়ে নির্দিষ্ট অভিযোগ থাকলে ওঁরা বলুন। পদক্ষেপ করা হবে।’’