বসিরহাট: অটো এবং টোটো গাড়ির রুট নিয়ে গন্ডগোলের জেরে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে গেল পারহাসনাবাদ থেকে লেবুখালি ও  রূপমারি রুটের অটো চলাচল। মঙ্গলবার থেকে এই ঘটনায় হয়রান হতে হচ্ছে সুন্দরবন এলাকার মানুষকে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, হাসনাবাদে  বনবিবি সেতু উদ্বোধনের পরে অটো এবং টোটো চালকদের মধ্যে গণ্ডগোলের শুরু। পারহাসনাবাদ থেকে লেবুখালি ও রূপমারি রুটে চলা তিনশোর বেশি অটো চালক চাইছিলেন, বনবিবি সেতু পেরিয়ে হাসনাবাদ স্টেশন-সংলগ্ন কোথাও যেন তাঁরা স্ট্যান্ড করে যাত্রী তুলতে ও নামাতে পারেন। অটো চালকদের দাবি, টোটো চালকদের বাধায় তা সম্ভব হয়নি। ফলে লেবুখালি-রূপমারি রুটের অটো যাত্রীদের বনবিবি সেতুর এক মুখে নামতে হয়। সেখান থেকে তাঁদের টোটো করে  সেতু পেরিয়ে  হাসনাবাদ স্টেশনে  যেতে হয়। একই ভাবে ট্রেন থেকে নেমে টোটো করে বনবিবি সেতু পেরিয়ে অটো স্ট্যান্ডে আসতে হচ্ছিল মানুষ জনকে। অটো চালকদের দাবি, এর ফলে  যাত্রীদের অসুবিধার পাশাপাশি বাড়িতে ভাড়া গুণতে হচ্ছে। কোনও কোনও ক্ষেত্রে টোটো চালকেরা হাসনাবাদ স্টেশন থেকে যাত্রী নিয়ে সেতু পেরিয়ে সরাসরি কাটাখালি, রামেশ্বরপুর যাচ্ছে।  ফলে পারহাসনাবাদে দাঁড়িয়ে থাকা অটো চালকদের যাত্রী পেতে অসুবিধা হচ্ছে। পুলিশ জানায়, এ দিন সকালে যাত্রী তোলাকে কেন্দ্র করে অটো এবং টোটো চালকদের মধ্যে বচসা, মারামারি হয়। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ অটো চালকরা লেবুখালি ও রূপমারি রুটে  অটো চলাচল বন্ধ করে দেন। ভোগান্তি হয় যাত্রীদের। অটো চালকদের পক্ষে হাসনাবাদের বিডিও এবং থানায় স্মারকলিপি দেওয়া হয়। 

হাসনাবাদ-লেবুখালি রুটের অটো ইউনিয়নের সম্পাদক যদুনাথ  সর্দার বলেন, ‘‘সুন্দরবনের প্রত্যন্ত এলাকার যাত্রীদের সুবিধার জন্য স্টেশন-সংলগ্ন যে কোনও জায়গায় অটো স্ট্যান্ড করতে দিতে হবে। তা না হলে অটো চলাচল বন্ধ থাকবে।’’ এ বিষয়ে টোটো চালকদের বক্তব্য,অটো স্ট্যান্ড যদি স্টেশন-সংলগ্ন এলাকায় করা হয়, তা হলে তাঁদের যাত্রী পেতে অসুবিধা হবে। ফলে রুটি-রুজিতে টান পড়বে। তাই স্টেশন-সংলগ্ন এলাকায় অটো স্ট্যান্ড করতে দেওয়া চলবে না।

এ বিষয়ে হাসনাবাদের বিডিও অরিন্দম মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‘অটো  ইউনিয়নের পক্ষে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি সমাধানের জন্য সব পক্ষকে নিয়ে বৈঠক করা  হবে।’’