২০১৭ সালে গ্রামের মাটির রাস্তাটি ঢালাই করা হবে বলে মুখ্যমন্ত্রী শিলান্যাস করেছিলেন। বনগাঁ ব্লকের জানিপুরে আজও সেই রাস্তা তৈরির কাজ শুরু না হওয়ায় বাসিন্দাদের মধ্যে ক্ষোভ বেড়েছে। অভিযোগ, ব্লক প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি দিয়েও কোনও কাজ হয়নি। গ্রামবাসীরা জানান, বৃষ্টিতে রাস্তায় জল-কাদা জমে গিয়েছে। যানবাহন নিয়ে তো দূরের কথা হেঁটেও রাস্তা দিয়ে চলাফেরা করা যাচ্ছে না। চটি হাতে করে যাতায়াত করতে হচ্ছে বাসিন্দাদের। খেত থেকে আনাজ নিয়ে আসতেও অসুবিধা হচ্ছে।

ইয়াসমিন মণ্ডল, নাজমুল দফাদাররা জানান,  বাধ্য হয়ে তাঁরা নিজেরা চাঁদা তুলে শুক্রবার থেকে  রাস্তা সারাইয়ের কাজ শুরু করেছেন। রাস্তাটি আধ কিলোমিটার। ঢালাই রাস্তার জন্য টাকা বরাদ্দও হয়েছিল। গ্রামে বাসিন্দারা ইট, সিমেন্ট, পলেস্তারা দিয়ে রাস্তায় ফেলে রাস্তা তৈরি করছেন। গ্রামবাসীর অভিযোগ, শিলান্যাসের বোর্ডটিও সরিয়ে ফেলা হয়েছিল। তাঁরা খুঁজে নিয়ে এসেছেন। বনগাঁ উত্তর কেন্দ্রের বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাস বলেন,  ‘‘এলাকার মানুষের কাছে রাস্তাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখন রাস্তার কাজ শুরু না হওয়াটা দুর্ভাগ্যজনক। প্রশাসনের ব্যর্থতার জন্য এমনটা ঘটেছে।’’

যদিও বনগাঁ পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ সৌমেন দত্ত বলেন, ‘‘রাস্তাটির জন্য ২০ লক্ষ টাকা অনুমোদন হয়েছে। তবে টাকা এখনও পঞ্চায়েত সমিতির কাছে আসেনি। টাকা এলেই কাজ শুরু করা হবে।’’ বনগাঁর মহকুমাশাসক কাকলি মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‘রাস্তাটি তৈরির জন্য পদক্ষেপ করা হচ্ছে।’’