প্রধান শিক্ষককে মারধর ও হেনস্থার প্রতিবাদে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস বয়কট করে বিক্ষোভ শুরু করল পড়ুয়ারা। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুর থানার এনায়েতনগর এম আই হাই মাদ্রাসায়। পুলিশ জানিয়েছে, প্রধান শিক্ষক হাফিজ মণ্ডলের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, মাস চারেক আগে জেলা মাইনরিটি এডুকেশন বোর্ডের পক্ষ থেকে ওই মাদ্রাসাকে ১২টি কম্পিউটার দেওয়া হয়েছিল ছাত্রছাত্রীদের প্রশিক্ষণের জন্য। প্রশিক্ষকও নিয়োগ করেছিল বোর্ড। সেই মতো প্রধান শিক্ষক তাঁকে কাজে যোগ দেওয়ার অনুমতি দেন। কিন্তু অভিযোগ, গত ৩ জানুয়ারি মাদ্রাসা পরিচালন সমিতির সভাপতি নইম মিস্ত্রি ও তাঁর লোকজন এসে দাবি করেন, নইমের এক আত্মীয়কে প্রশিক্ষক হিসেবে নিতে হবে। এ নিয়ে হাফিজের সঙ্গে তাঁর বাদানুবাদ হয়। অভিযোগ, হাফিজকে মারধর করা হয়। ভাঙচুর চালানো হয় তাঁর অফিসে। রবিবার থানায় অভিযোগ দায়ের করেন প্রধান শিক্ষক।

এ দিন ঘটনা জানাজানি হতেই পড়ুয়া ও অভিভাবকেরা স্কুলের গেটে তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। হাফিজ বলেন, ‘‘বোর্ডের নিযুক্ত করা প্রশিক্ষককে আমি এ ভাবে বাদ দিতে পারি না। ওঁরা অনৈতিক দাবি করছিলেন।’’ ঘটনা প্রসঙ্গে নইমকে বারবার ফোন এবং এসএমএস করা হলেও তিনি উত্তর দেননি।