ধুলোয় মোড়া খানাখন্দ ভরা রাস্তা। মাঝে মধ্যে ইট উঠে গর্ত হয়ে গিয়েছে। যাতায়াতের পথে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা।

ডায়মন্ড হারবার পুরসভার ১১৭ নম্বর জাতীয় সড়কের স্টেশন মোড় থেকে রেলগেট পর্যন্ত প্রায় ৫০০ মিটার রাস্তার অবস্থা খারাপ। বছর খানেক আগে বর্ষার সময় ওই রাস্তাটি ভেঙে গিয়েছিল। খানাখন্দ ভরা রাস্তায় যাতায়াত এখন সমস্যার হয়ে দাঁড়িয়েছে। পুরসভা থেকে একবার কোনও রকমে ইট ফেলে গর্ত ভরাট করা হয়েছিল ঠিকই। কিন্তু তা বেশিদিন টেকেনি। রাস্তাটি ফের ভাঙতে শুরু করেছে।

ডায়মন্ড হারবারের পুরপ্রধান মিরা হালদার বলেন, ‘‘ওই রাস্তাটি কংক্রিটের করার জন্য অনুমোদন মিলেছে। রাস্তার দু’ধারে ব্যবসায়ীদের সরিয়ে শীঘ্রই কাজ শুরু হবে।’’

রেলগেট থেকে স্টেশন মোড় পর্যন্ত ওই রাস্তা দিয়ে সারাদিন হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করেন। শুধু ভাঙা রাস্তা নয়, ওই রাস্তাতে ধুলোরও সমস্যা আছে। কোনও গাড়ি গেলে সারা এলাকা ধুলোয় ঢেকে যায়। এর মধ্যে দিয়েই যাতায়াত করে স্কুল পড়ুয়ারা। তাদের কথায়, ‘‘স্কুলের পোশাক নোংরা হয়ে যায়। ধুলোর জন্য শ্বাস নিতেও কষ্ট হয়।’’ আশেপাশের খাওয়ারের দোকানগুলিরও সমস্যা হচ্ছে। ধুলোর জন্য পরিবেশ দূষিত হচ্ছে বলে স্থানীয়রা জানান। তাঁদের অভিযোগ, এত গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটির কথা প্রশাসনের সব স্তরই জানে। তবু কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয় না।

এ বিষয়ে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রণব দাস বলেন, ‘‘রাস্তাটি সংস্কারের জন্য পূর্ত সড়ক দফতরে জানানো হয়েছে। শীঘ্রই কাজ শুরু হবে।’’ এ বিষয়ে ডায়মন্ড হারবার হাইওয়ে ডিভিশনের সহকারী বাস্তুকার অলকনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, ওই এলাকার সাংসদ ও বিধায়ক রাস্তাটি সংস্কারের জন্য বলেছিলেন। সেই মতো প্রায় ৫০০ মিটার কংক্রিট ও সংযোগে নিকাশি নালা করার জন্য ১ কোটি ৫৬ লক্ষ টাকা অনুমোদন হয়েছে। পুরসভাকে বলা হয়েছে রাস্তা নির্মাণের জন্য ব্যবসায়ীদের সরাতে। ওই রাস্তার পাশে ব্যবসায়ীদের নিয়ে মাস দু’য়েক আগে মহকুমা প্রশাসনের দফতরে সভাও ডাকা হয়েছিল। তাতে ওঁরা সরে যাওয়ার সন্মতি দিয়েছিল। 

এখন শুধু রাস্তা ঠিক হওয়ার প্রতীক্ষায় বাসিন্দারা।