আশ্রমে যেতে ছোট একটি মালবাহী গাড়ি ভাড়া করেছিলেন পুণ্যার্থীরা। চালকের বদলে একটি বাচ্চা ছেলে চালাচ্ছিল সেই গাড়ি। পথে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাড়ি উল্টে জখম হলেন ১৬ জন। বৃহস্পতিবার, বারাসত-টাকি রোডের দেগঙ্গা বাজারের কাছে এই ঘটনা ঘটে। আহতদের স্থানীয় বিশ্বনাথপুর ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে কৌশিক রায় নামে এক যুবককের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাঁকে বারাসত জেলা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। পুলিশ ওই গাড়িটির চালককে গ্রেফতার করেছে। থানায় তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে দুর্ঘটনাগ্রস্ত গাড়িটিকেও।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, আশ্রমে যাওয়ার আগে এ দিন সকালে বেড়াচাঁপার গড়পাড়ার কিছু যুবক ওই ছোট গাড়িটি করে বাগবাজার ঘাট থেকে গঙ্গাজল আনতে যাচ্ছিলেন। দেগঙ্গা বাজারের আগে গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গাড়িটির গতি এতটাই বেশি ছিল যে, উল্টে যাওয়ার পরেই গাড়িটি রাস্তায় বেশ কিছুটা ঘষটে যায়। যাত্রীদের অনেকেরই হাত-পা ভাঙে। তাঁদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয়েরা। আহতদের মধ্যে সমীর সর্দার নামে এক যুবক বলেন, ‘‘গাড়িটি প্রচন্ড জোরে ছুটছিল। হঠাৎ টাল সামলাতে না পেরে রাস্তায় এঁকেবেঁকে উল্টে যায়। পিচের রাস্তায় আমাদের হিঁচড়ে নিয়ে চলতে থাকে।’’ 

উদ্ধারকারীদের অভিযোগ, উৎসব ঘিরে লক্ষ লক্ষ ভক্তের ভিড় বাড়লেও প্রশাসনের নজরদারির অভাব আছে। এই কয়েক দিন রাস্তায় বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চলে। গাড়িতে ঝুলতে ঝুলতে যান পুণ্যার্থীরা। বিপদের আশঙ্কা থাকে প্রতি মুহূর্তে। তবে পুলিশ জানিয়েছে, এ দিন গাড়িচালক নিজে গাড়ি না চালিয়ে পাশে বসা ছোট একটি ছেলের হাতে স্টিয়ারিং তুলে দিয়েছিলেন। তার জেরেই এই বিপত্তি।