ফাঁস লাগানো অবস্থায় এক ইঞ্জিনিয়ারের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করল পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার দুপুরে বিষ্ণুপুর থানার রামনগর পুরকাইত পাড়া থেকে। মৃতের নাম শুভঙ্কর পুরকাইত (২৬)। 

তদন্তে পুলিশ জেনেছে, বছর দশেক আগে শুভঙ্করের বাবা মারা গিয়েছেন। তিন বছর আগে শ্যামবাজারের বাসিন্দা এক যুবতীর সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। বছর খানেক আগে ওই যুবতীর সঙ্গে তাঁর রেজিস্ট্রি করে বিয়েও হয়। 

সম্প্রতি শুভঙ্কর এক বেসরকারি সংস্থায় চাকরি পেয়েছিলেন। এর পরেই তাঁরা অনুষ্ঠান করে বিয়ের প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেন। তদন্তকারীরা জেনেছেন, দিন কয়েক আগে ওই যুবতী শুভঙ্করদের বাড়িতে যান। কিন্তু এই বিয়ে নিয়ে শুভঙ্করের মা এবং বিবাহিতা দিদিদের আপত্তি ছিল। এই বিয়ে কোনও ভাবেই মেনে নেওয়া হবে না বলে সোমবার তাঁরা জানিয়ে দেন।

পুলিশ সূত্রের খবর, ওই দুপুরে শুভঙ্করের মা রাধা পুরকাইত বাপের বাড়ি চলে গিয়েছিলেন। এক প্রতিবেশী শুভঙ্করদের বাড়ি গিয়ে ডাকাডাকি করে সাড়া পাননি। বিষয়টি শুভঙ্করের মাকে ফোন করে জানানো হয়। তিনি আসার পরে প্রতিবেশীরা দরজা ভেঙে দেখেন, দোতলার শৌচালয়ে ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলছেন শুভঙ্কর। তদন্তকারীদের অনুমান, ওই যুবক আত্মঘাতী হয়েছেন। তবে ঘর থেকে কোনও সুইসাইড নোট মেলেনি বলেই জানা গিয়েছে। তদন্তে জানা গিয়েছে, শেষ মুহূর্তে নিজের মোবাইল থেকে ভিডিয়ো কল করেছিলেন ওই যুবক। সেগুলিতে শুভঙ্কর কাকে কী বলেছিলেন, তা খতিয়ে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন তদন্তকারী অফিসারেরা। এ জন্য শুভঙ্করের মোবাইলটি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। শুভঙ্করের মা এবং দিদিদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তদন্তের স্বার্থে খোঁজ চলছে ওই বান্ধবীরও।