নিখোঁজ শিশুর সন্ধান পেতে ড্রোন ক্যামেরা নামাল পুলিশ।

পুলিশ সূত্রের খবর, গত সোমবার থেকে খোঁজ মিলছে না নরেন্দ্রপুর থানার উত্তর খেয়াদা এলাকার বাসিন্দা ছ’বছরের রিয়া মুন্ডার। তার বাড়ির লোকের অভিযোগ, ওই দিন সকালে খাবার কিনে দেওয়ার লোভ দেখিয়ে শিশুটিকে অপহরণ করে প্রতিবেশী আসগর আলি শেখ নামে এক ব্যক্তি। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তও এলাকা ছাড়া। চার দিন পরেও রিয়ার খোঁজ না মেলায় বৃহস্পতিবার খেয়াদায় পথ অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয়েরা। সে দিন আসগরের বাড়িতেও ভাঙচুর চালানো হয় বলে অভিযোগ।

নরেন্দ্রপুর থানা সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার পুলিশ কুকুর এনে রিয়ার বাড়ি-সহ আশপাশের এলাকায় তল্লাশি চালান তদন্তকারীরা। খোঁজ চালানো হয় আসগরের বাড়িতে। ওই এলাকায় ঘন জঙ্গল রয়েছে। সেখানেও চলে তল্লাশি। পুলিশ জানিয়েছে, কুকুর নিয়ে তল্লাশি চালানোর সময়ে কয়েকটি সাপ নজরে এসেছিল। তা থেকে তদন্তকারীরা মনে করছেন, ওই জঙ্গলে বিষধর সাপ থাকতে পারে। সে কারণে শুক্রবার কলকাতা পুলিশের সাহায্যে ড্রোন ক্যামেরা নিয়ে তল্লাশি চালানো হয়। কিন্তু তার পরেও রিয়ার খোঁজ মেলেনি।

হঠাৎ জঙ্গলে তল্লাশির সিদ্ধান্ত কেন? 

প্রাথমিক ভাবে পুলিশ জানিয়েছে, রিয়ার বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত ছিল আসগরের। ঘটনার দিন সে মত্ত অবস্থায় ছিল। কোনও আক্রোশের বশে আসগর শিশুটিকে খুন করে তার দেহ বাড়ির আশপাশে জঙ্গলে ফেলে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হয়েছিল। সে কারণেই সেখানে তল্লাশি চালানো হয়। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, ড্রোন ক্যামেরাতেও রহস্যভেদ না হওয়ায় আপাতত আসগরের মোবাইল টাওয়ারের অবস্থান দেখে শিশুটির খোঁজ চালানো হচ্ছে।