• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে দুই জেলায়

Corona
প্রতীকী ছবি

পাথরপ্রতিমা ব্লকে ২ জন ও নামখানা ব্লকে ১ জন পরিযায়ী শ্রমিকের করোনা পজিটিভ মিলল। ডায়মন্ড হারবার স্বাস্থ্য জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক দেবাশিস রায় বলেন, ‘‘ওই তিনজনের লালারস পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তিনজনকেই রাজারহাটে করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।’’ স্বাস্থ্য দফতর সুত্রে জানা গিয়েছে, ওই তিনজন মহারাষ্ট্র থেকে সপ্তাহখানেক আগে বাড়িতে ফিরেছিলেন। বাড়িতে ঢোকার আগে স্থানীয় গ্রামীণ হাসপাতালে লালারস সংগ্রহ করা হয়েছিল। 

ভিন্ রাজ্য থেকে ফেরা আরও ৪ পরিযায়ী শ্রমিকের দেহে মিলল করোনাভাইরাস। একজনের বাড়ি গোসাবার পাঠানখালিতে। বাকি তিনজনের বাড়ি ক্যানিং ২ ব্লকের দাহারানিতে। পাঠানখালির আক্রান্ত ব্যক্তি বিহার থেকে ফিরেছিলেন দিন চারেক আগে। ক্যানিংয়ের ওই তিনজন দিন চারেক আগেই ফিরেছেন মুম্বই থেকে। সকলকে ক্যানিং কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ক্যানিং মহকুমা অতিরিক্ত মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক পরিমল ডাকুয়া বলেন, ‘‘চারজনের করোনা সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে। চিকিৎসা চলছে।” বনগাঁ মহকুমায় নতুন করে ৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন। গাইঘাটায় পাঁচজন এবং বনগাঁয় ২ জন। গাইঘাটার বিএমওএইচ  সুজন  গায়েন  বলেন, ‘‘শনিবার ব্লকের পাঁচজনের করোনাপজিটিভ  রিপোর্ট পেয়েছি। একজন সেনাকর্মী। বাকিরা পরিযায়ী  শ্রমিক।’’ বনগাঁ থানা এলাকায় দুই যুবক করোনা পজিটিভ হয়েছেন। তাঁরা দিন কয়েক আগে মহারাষ্ট্র থেকে ফিরেছিলেন। বিএমওএইচ মৃগাঙ্ক সাহা রায় বলেন, ‘‘শনিবার দুই যুবকের রিপোর্ট  এসেছে। তাঁরা পজিটিভ। কোভিড হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’’ পুলিশ সূত্রে জানা  গিয়েছে  অশোকনগরের রাজীবপুর বিড়া পঞ্চায়েত এলাকায় এক পরিযায়ী শ্রমিক করোনাপজিটিভ হয়েছেন। ওই এলাকাটি আগে থেকেই গণ্ডিবদ্ধ ছিল। এলাকার এক বাসিন্দা করোনায় আক্রান্ত  হয়েছিলেন।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন