বেআইনি ভাবে নিজের বাড়িতে আটকে রেখে দুই নাবালক-নাবালিকাকে দিয়ে কাজ করানোর অভিযোগে এক মহিলাকে গ্রেফতার করল বারুইপুর থানার পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, বুধবার রাতে জয়নগরের বেলিয়াচণ্ডীর ভদ্রপাড়া এলাকা থেকে পুতুল ভদ্র নামে ওই মহিলাকে ধরা হয়। ৭ ও ১০ বছরের ওই দু’জনকে দিয়ে বাড়ির কাজকর্ম করানো হত। মারধর করা হত বলেও অভিযোগ। প্রতিবেশীরা প্রতিবাদ করলে তাতে কর্ণপাত করেননি মহিলা। কী ভাবে বাচ্চারা দু’জন পুতুলের বাড়িতে এল, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।     

পুলিশ জানায়, বুধবার কোনও ভাবে একটি শিশু বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে তাকে কাঁদতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। বছর সাতেকের মেয়েটিকে জয়নগর থানায় নিয়ে আসা হয়। মহিলার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন স্থানীয় কয়েকজন। তদন্তে নামে পুলিশ। খবর যায় বারুইপুর মহিলা থানাতেও। জয়নগর থানার পুলিশ এবং মহিলা থানার আধিকারিকেরা যৌথ ভাবে রাতেই পুতুলকে গ্রেফতার করে। তার বাড়ি থেকে বছর দশেকের একটি ছেলেকেও উদ্ধার করা হয়েছে। 

অভিযোগকারী এক স্থানীয় বাসিন্দার কথায়, ‘‘বেশ কিছু দিন ধরেই বাচ্চার কান্নার আওয়াজ পাওয়া যেত। মারধরের শব্দও পেতাম। কিছু বলতে গেলে শুনত না। প্রথম শিশুটিকে নিয়ে থানায় আসার ঘটনা জানাজানি হওয়ার পরে পুতুল আমাদের হুমকিও দেয়।’’ 

পুলিশ সূত্রে খবর, দুই নাবালক-নাবালিকার ঠিকানা, পরিচয় কিছুই স্পষ্ট করে জানা যায়নি। তাদের চাইল্ডলাইনের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। 

বছর পঞ্চাশের পুতুল স্বামীর সঙ্গে থাকেন। তাঁর দাবি, বাচ্চাদের নিয়ে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা করার কথা ছিল। সে জন্যই কয়েকজনকে বাড়িতে রেখেছিলেন। পুলিশ অবশ্য দু’জনকেই উদ্ধার করেছে। মহিলার দাবি খতিয়ে দখছেন তদন্তকারীরা।