দুর্ঘটনার পরে দু’জায়গায় তাণ্ডব, খুনের চেষ্টা, অগ্নিসংযোগের অভিযোগে ২১ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার ধৃতদের কালনা আদালতে তোলা হলে এসিজেএম চার জনকে ছ’দিনের পুলিশ হেফাজত ও বাকিদের ১৪ দিন জেল-হাজত দেন।

বৃহস্পতিবার কালনার কেষ্টপুর এলাকায় একটি কারখানার সামনে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় মৃত্যু হয় দুই মোটরবাইক আরোহীর। বাস উল্টে আহত হন ৪৬ জন। স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযোগ করেন, ঘটনাস্থলের কিছুটা আগে বাইকের নথিপত্র দেখার নাম করে এক সিভিক ভলান্টিয়ার তাড়া করেন দুই বাইক আরোহীকে। পালাতে গিয়ে বাসের মুখে গিয়ে পড়েন তাঁরা। পুলিশের বিরুদ্ধে ক্ষোভও জানান তাঁরা। দফায় দফায় শুরু হয় বিক্ষোভ।

প্রথমে কেষ্টপুর এলাকায়, পরে কালনা মহকুমা হাসপাতাল লাগোয়া এলাকায় বিক্ষোভ, অবরোধ চলে। পোড়ানো হয় দু’টি মোটরবাইক, পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করে, ইট-পাথর ছোড়া হয় বলেও অভিযোগ। দীর্ঘ অবরোধে থমকে যায় যানবাহন। পুলিশ জানায়, ধৃতদের বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টা, পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ-সহ বেশ কয়েকটি ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। কালনায় ঠিক কী ঘটেছিল তা জানতে এ দিন এলাকা পরিদর্শন করেন পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায়। ট্র্যাফিকের আধিকারিকদের সঙ্গে বিষয়টি  নিয়ে বৈঠকও করেন তিনি।