একটি গর্ভবতী কুকুরকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ উঠল এক মহিলার বিরুদ্ধে। কুকুরটির দু’টি সদ্যোজাত শাবককেও পুড়িয়ে মারা হয়েছে বলে অভিযোগ। দিন দু’য়েক আগে বর্ধমান শহরের গোদা খন্দকারপাড়া এলাকার ঘটনা। বিষয়টি নিয়ে বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে শহরের একটি পশুপ্রেমী সংগঠন।

ওই সংগঠনের তরফে জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত আসিয়া বিবির পোষা মুরগি খেয়ে ফেলে একটি কুকুর। অভিযোগ, সেই আক্রোশে ওই গর্ভবতী কুকুর এবং তার দুই শাবককে জ্যান্ত জ্বালিয়ে দেন তিনি। কুকুরশাবক দু’টি ঘটনাস্থলেই মারা যায়। আর গর্ভবতী কুকুরটি সোমবার বিকেলে তিনটি মৃত সন্তান জন্ম দেওয়ার পরে, মারা যায়। এর পরেই অভিযোগ করেন ওই সংস্থার সদস্যেরা। ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃত কুকুরশাবকগুলির সৎকারও করেন তাঁরা। মঙ্গলবার বর্ধমানের কার্জনগেটের পশু হাসপাতালে মৃত কুকুরগুলির ময়না-তদন্ত করা হয়।  

সংগঠনের এক সদস্য অর্ণব দাস বলেন, ‘‘ওই মহিলার নামে বর্ধমান থানায় এফআইআর করা হয়েছে। এমন অমানবিক ঘটনা ভাবা যায় না।’’ 

চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতেও এ ধরনের ঘটনার অভিযোগ উঠেছিল শহরে। বড়নীলপুর শান্তিপাড়ায় একটি কুকুরছানাকে জখম অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। পরে জানা যায়, ওই পাড়ার একটি পরিবার তাকে পিটিয়েছে। বর্ধমান থানায় দু’জনের নামে অভিযোগও দায়ের হয়। গত জুলাইয়েও খোসবাগানেও একটি কুকুরশাবককে আছড়ে মেরে ফেলার অভিযোগ ওঠে। বারবার এমন ঘটনায় চিন্তিত শহরের পশুপ্রেমীরা। সহানুভূতির সঙ্গে বিষয়গুলি দেখারও আবেদন জানিয়েছেন তাঁরা। মঙ্গলবার সকালে অভিযুক্ত মহিলার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় তিনি বাড়িতে নেই। স্থানীয় সূত্রে খবর, ঘটনার পর থেকেই এলাকায় দেখা যায়নি তাঁকে। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। ওই মহিলার খোঁজ চলছে।