কুকুরছানাকে পিটিয়ে মারার অভিযোগ উঠল শহরে। বর্ধমানের বড়নীলপুর শান্তিপাড়ার এক ব্যক্তি ও তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ করেছে পশুপ্রেমী একটি সংগঠন। পুলিশ জানায়, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

ওই সংগঠন সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার সকালে বড়নীলপুর শান্তিপাড়ায় একটি কুকুরছানাকে জখম অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন তাদের কিছু সদস্য। তাঁরাই ওই ছানাটিকে খাবার দিতেন। সে দিন সকালে তাকে খাবার দিতে গিয়ে তাঁরা দেখেন, কুকুরটি মৃতপ্রায় অবস্থায় পড়ে রয়েছেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই সেটির মৃত্যু হয়।

সংগঠনের দাবি, তাদের সদস্যেরা খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, পাড়ার এক ব্যক্তি ও তাঁর ছেলে কুকুর ছানাটিকে পিটিয়ে মেরেছে। সংগঠনের সদস্য পায়েল মল্লিক, প্রতীক মাঝি, মণি চট্টোপাধ্যায়েরা অভিযোগ করেন, অভিযুক্ত বাবা-ছেলে দাবি করেছেন, রাতে কুকুরছানাটি চিৎকার করায় তাঁদের ঘুম হয়নি। তাই তাঁরা কুকুরটিকে মেরেছেন। এই ঘটনা জানার পরে সংগঠনের তরফে বর্ধমান থানায় ওই দু’জনের  নামে অভিযোগ দায়ের করা হয়। সংগঠনের সম্পাদক অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‘সে দিনই বর্ধমানের ফাগুপুরের পশু হাসপাতালে মৃত কুকুরছানাটির ময়না-তদন্ত করা হয়েছে। পুলিশ এ ব্যাপারে সহযোগিতা করছে।’’

এনআরএস হাসপাতালে বেশ কয়েকটি কুকুরছানাকে পিটিয়ে মারার ঘটনায় প্রতিবাদের ঝড় ওঠে বর্ধমানেও। ওই সংগঠনের তরফেও টাউন হল থেকে কার্জন গেট পর্যন্ত মিছিল করা হয়। কিন্তু তার পরে শহরেই এমন ঘটনা ঘটায় ক্ষুব্ধ এলাকার অনেকেই। যদিও অভিযুক্তদের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। তাঁদের ফোন বন্ধ ছিল। পুলিশ জানায়, গোটা ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।