• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

‘সুপার মার্কেট’-এর কাজ নিয়ে পরামর্শ

super Market
অসমাপ্ত: পাঁচ বছর ধরে এ ভাবেই পড়ে ভবন। নিজস্ব চিত্র

প্রায় পাঁচ বছর ধরে প্রস্তাবিত রানিগঞ্জ ‘সুপার মার্কেট’-এর নির্মাণকাজ বন্ধ রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে ফের কাজ শুরুর জন্য আসানসোল পুরসভা ও দায়িত্বপ্রাপ্ত বেসরকারি সংস্থা, উভয়কেই কিছু পরামর্শ দিয়েছে ‘আরবিট্রেশন ফোরাম’।

চলতি বছর ১১ জানুয়ারি ফোরাম আসানসোল পুরসভাকে উক্ত সংস্থার সঙ্গে আলোচনা করে বিষয়টি নিষ্পত্তির চেষ্টা করার পরামর্শ দিয়েছে। সমস্ত সম্ভাবনার খতিয়ে দেখতে বলা হয়। পাশাপাশি, বেসরকারি সংস্থাটিকেও পুরসভার সঙ্গে আলোচনা করার পরামর্শ দিয়েছে ফোরাম।

আসানসোল পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, সাবেক রানিগঞ্জ পুরসভা ২০০৮-২০০৯ অর্থবর্ষে একটি বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে যৌথ ভাবে একটি ‘যৌথ সংস্থা’ তৈরি করে। সেই সংস্থা মার্কেট তৈরির বরাত পায়। সাবের রানিগঞ্জ পুরসভার তৎকালীন পুরপ্রধান তথা রানিগঞ্জের বর্তমান সিপিএম বিধায়ক রুনু দত্ত জানান, প্রায় দেড় বিঘা জমি পুরসভা কিনেছিল। সেই জমি ‘সুপার মার্কেট’ তৈরির জন্য ওই ‘যৌথ সংস্থা’কে বিক্রি করা হয়। তার পরে, রানিগঞ্জের শিশুবাগান মোড়ে প্রায় ১১ বছর আগে এই মার্কেট তৈরির কাজ শুরু হয়। তেতলা ভবনের প্রাথমিক পরিকাঠামো, ছাদ ঢালাইয়ের কাজও হয়ে যায়।

রুনুবাবুর দাবি, চুক্তি অনুযায়ী, নির্মাণ কাজে পুরসভার ৪০ শতাংশ এবং বেসরকারি সংস্থাটির ৬০ শতাংশ টাকা দেওয়ার কথা। নির্মাণের পরে মালিকানার ক্ষেত্রেও যথাক্রমে একই শতাংশ অংশীদারিত্ব থাকবে পুরসভা ও বেসরকারি সংস্থা। শর্ত মেনে দু’পক্ষই দোকান বিক্রিও করতে পারবে। রুনুবাবুর অভিযোগ, ‘‘২০১৫-য় আসানসোল পুরসভায় রানিগঞ্জের অন্তর্ভুক্তির পরে থেকেই এই মার্কেট তৈরির কাজ বন্ধ। অথচ, রানিগঞ্জে এ ধরনের কোনও ‘মার্কেট’ নেই। কেন কাজ বন্ধ হল, তা বর্তমান শাসকগোষ্ঠীই বলতে পারবেন।’’

যদিও, আসানসোল পুরসভার দাবি, ২০১৫-য় কোনও আলোচনা ছাড়ায় নির্মাণকাজ বন্ধ করে বেসরকারি সংস্থা ‘আরবিট্রেশন ফোরাম’-এর দ্বারস্থ হয়। সেখানে তারা অভিযোগ করে, পুরসভা শর্তপূরণ না করায় নির্মাণকাজ বন্ধ রাখা হয়েছে। বেসরকারি সংস্থার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আধিকারিক জানান, পুরসভা শর্ত অনুযায়ী নির্মাণকাজের টাকা না দেওয়ায় তাঁরা কাজ বন্ধ করতে বাধ্য হন। এই অভিযোগ প্রসঙ্গে  আসানসোল পুরসভার মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারির দাবি, ‘‘যা অভিযোগ উঠেছে, তা সাবেক রানিগঞ্জ পুরসভার বিরুদ্ধে।’’ পাশাপাশি, তাঁর সংযোজন: ‘‘লকডাউনের জেরে আলোচনায় বসতে দেরি হচ্ছে। আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের কাজ শুরু হবে।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন