শুধুমাত্র ফলক ও নাম ঝকঝক করছে। বাকি বাইরের দেওয়ালের রং ফিকে হয়ে গিয়েছে। কোথাও আবার ফাটলও ধরেছে। ভিতরের অবস্থাটা কেমন, তা বাইরে থেকে বোঝা যাচ্ছে না। এমনই অবস্থা রানিগঞ্জের ষষ্ঠীগড়িয়া এলাকায় নির্মিত সুকান্ত ‘আর্ট গ্যালারি’র। ১৫ বছর আগে নির্মিত এই গ্যালারির দরজা উদ্বোধনের পর থেকেই বন্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে। বাসিন্দারা জানান, উদ্বোধনের দিনই এখানে একবার চিত্র প্রদর্শনী হয়েছিল। তারপর থেকেই এই গ্যালারিমুখো হননি শিল্পীরা।

২০০৪ সালের ১৬ জুলাই পূর্বতন রানিগঞ্জ পুরসভার উদ্যোগে এবং প্রয়াত সাংসদ বিকাশ চৌধুরীর তহবিলের টাকায় এই গ্যালারি নির্মিত হয়েছিল। উদ্বোধন করেছিলেন রাজ্যের তৎকালীন ক্ষুদ্র, কুটির শিল্প ও কারিগরি প্রশিক্ষণ মন্ত্রী বংশগোপাল চৌধুরী। কিন্তু কেন গ্যালারি বন্ধ? এ প্রসঙ্গে পূর্বতন পুরসভার চেয়ারম্যান রুনু দত্ত জানান, স্থানীয় শিল্পীদের আবেদনের ভিত্তিতে গ্যালারিটি তৈরি করা হয়েছিল। তারপর কেন বন্ধ হয়ে গিয়েছে তা তিনি বলতে পারবেন না। শিল্পীরা অবশ্য পরিকাঠামোগত সমস্যাকে দায়ী করেছেন। স্থানীয় শিক্ষাপীঠের চিত্রশিল্পী দিলীপ দে জানান, একটি আর্ট গ্যালারির দাবি জানিয়ে গণস্বাক্ষর সম্বলিত স্মারকলিপি পুরসভার কাছে জমা দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘‘গ্যালারি কেমন করলে ভাল হয়, সে বিষয়ে তৎকালীন পুরসভার চেয়ারম্যান আমাদের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়েছিলেন।’’ তাঁর অভিযোগ, কিন্তু সেই মতো কাজ হয়নি। খুব স্বল্প পরিসরে নির্মিত গ্যালারি চিত্র প্রদর্শনী করার উপযুক্তই নয়। তাই সেখানে কেউ যান না।

রানিগঞ্জের আর এক চিত্রশিল্পী দীনু হাজরা বলেন, “আমি এবং আর এক শিল্পী সুশীল পাল ২০০২ ও ২০০৩ সালে কৃষ্টি এবং কল্লোল নামে একটি অধিবেশন কক্ষে নিজেদের আঁকা ছবির প্রদর্শনীর আয়োজন করেছিলাম। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বংশবাবু। তাঁকে আমরা একটি পূর্ণাঙ্গ আয়তনের গ্যালারি তৈরির অনুরোধ করেছিলাম।’’ তিনি জানান, তারপর পূর্বতন পুরসভা উদ্যোগ নেয়। পুরসভা শহরের ষষ্ঠীগড়িয়া এলাকায় সুকান্ত শিশু উদ্যানের একপাশে দ্বিতল ভবনের উপরে খুব ছোট পরিসরে গ্যালারি তৈরি করে দেয়। তাঁদের বক্তব্য, ‘‘আমরা দু’জন উদ্বোধনের দিন চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করতে গিয়ে সমস্যায় পড়ি। চিত্র প্রদর্শনী আয়োজনের জন্য ন্যূনতম ২০\১৫ ফুটের কক্ষ প্রয়োজন। না হলে প্রদর্শনী আয়োজন করা বৃথা। কারণ, এর থেকে ছোট জায়গা হলে দর্শকেরা ভাল করে ছবি দেখতে পারবেন না।’’

শিল্পীদের দাবি, তাঁরা চেয়েছিলেম রানিগঞ্জের বাণিজ্যকেন্দ্রের উপরতলায় একটি বড় অধিবেশন কক্ষ তৈরি করা হোক। সেখানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান মঞ্চ-সহ গ্যালারি করা হোক। কিন্তু সেই আবেদনে পুরকর্তৃপক্ষ কর্ণপাত করেননি বলে অভিযোগ। ছোট জায়গার জন্য ষষ্ঠীগড়িয়ায় কেউ প্রদর্শনীর আয়োজন করেন না। এ প্রসঙ্গে আসানসোল পুরসভার মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারি জানান, গ্যালারির আধুনিকীকরণ নিয়ে পরিকল্পনা নেওয়া হবে।